kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মৃত্যুর খবরে বের হয়ে ওরাও লাশ

ফুলপুরে মাইক্রোবাস পুকুরে, মা-মেয়েসহ নিহত ৮

ফুলপুর ও গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৯ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




মৃত্যুর খবরে বের হয়ে ওরাও লাশ

এক আত্মীয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে তাঁকে শেষবারের মতো দেখতে যাচ্ছিলেন তাঁরা। পথে মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুকুরে পড়ায় তাঁদের মৃত্যুর খবর পায় সবাই। মর্মন্তুদ এ ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলায় ময়মনসিংহ-শেরপুর মহাসড়কে। এতে মা-মেয়েসহ আটজন নিহত হয়েছেন। তাঁরা সবাই নিকটাত্মীয়। মাইক্রোবাসটিতে ১৪ জন যাত্রী ছিলেন।

নিহতরা হলেন—ভালুকা উপজেলার কাইচান বাকশিবাড়ী গ্রামের শাজাহান মিয়ার মা মিলন আক্তার (৫০), পুত্রবধূ বেগম আক্তার (৩৫), নাতনি বুলবুলি (৭), মিলন আক্তারের বড় বোন গফরগাঁও উপজেলার শেখ বাজারের এলাহী বক্সের স্ত্রী রেজিয়া আক্তার (৫৫), ছোট বোন গফরগাঁও উপজেলার মশাখালীর হাফিজ উদ্দিনের স্ত্রী পারুল আক্তার (৪৪), ছোট ভাই গফরগাঁও উপজেলার পাগলার শামছুল হক (৪৮), শামছুল হকের শ্যালক তারাকান্দা দাদরার নবী হোসেন (৩০) এবং রেজিয়া আক্তারের পুত্রবধূ রিপা আক্তার (৩০)।

তাঁদের মধ্যে শিশু বুলবুলি মামা নবী হোসেনের গলায় জড়িয়ে ছিল। এ অবস্থায় তাঁদের লাশ উদ্ধারের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত সবাই আবেগাক্রান্ত হয়ে পড়ে।

ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে মাইক্রোবাসে (ঢাকা মেট্রো-ট-১৯-২৩৯৯) শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে আত্মীয়ের জানাজায় যোগ দিতে যাচ্ছিলেন এই আটজনসহ ১৪ জন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন চারজন। মাইক্রোবাসের চালক নজরুল ইসলাম পালিয়ে গেছেন।

শাজাহান তাঁর শিশুকন্যা বুলবুলি ও স্ত্রী বেগম আক্তার, মা মিলন আক্তারসহ দুই খালা ও এক মামাকে  হারিয়েছেন। তাঁর আহাজারিতে বাক্রুদ্ধ হয়ে পড়েন সবাই। শাজাহানও মাইক্রোবাসে ছিলেন।

নিহতদের স্বজন রাজু মিয়া জানান, নালিতাবাড়ীতে তাঁর এক মামার জানাজায় অংশ নিতে দুই মামা, মামিসহ মোট ১৪ জন মাইক্রোবাসে করে যাচ্ছিলেন। ফুলপুর উপজেলায় বাশাটি নামক স্থানে মাইক্রোবাসের চালক একটি ট্রাককে সাইড দিতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগান। এতে পুকুরে পড়ে যায় মাইক্রোবাস। চালক গাড়ির দরজা না খুলে পালিয়ে যান অভিযোগ করে তিনি বলেন, গাড়ির ভেতরে থাকা নারী-শিশুরা বের হতে না পারায় খুব অল্প সময়ের মধ্যে তাঁরা মারা যান। এ ঘটনায় দুই মামি ও নানিকে হারিয়েছেন রাজু। তিনি দ্রুত সময়ে বের হতে পারলেও স্বজনদের বাঁচাতে পারেননি বলে কাঁদতে থাকেন।

স্থানীয়রা জানান, মাইক্রোবাসে থাকা নারী-শিশুসহ অন্যদের চিৎকারে এগিয়ে যান তাঁরা। তাঁরাসহ ফুলপুর থানার পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা মাইক্রোবাসের জানালা ভেঙে ছয়জনকে জীবিত উদ্ধার করেন।  আটজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার।

ফুলপুর থানার ওসি ইমারত হোসেন গাজী জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে লাশ ময়নাতদন্ত  ছাড়াই গতকাল  দুপুরে  স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আহত চারজন হলেন—গফরগাঁও আঠারধানা থানার এলাহী বখশের ছেলে রতন মিয়া (৫০), মশাখালী গ্রামের উসমান মিয়ার ছেলে হাবিবুর রহমান (৫৫), একই উপজেলার আবুল কালামের ছেলে সোহরাব (২৮), রাজু মিয়া (৩৪) এবং ভালুকা উপজেলার বিরুনিয়া গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে মিজান (২৮)।

জয়পুরহাট : আক্কেলপুর উপজেলার মাতাপুরে গতকাল সকাল ১০টার দিকে বাসের সঙ্গে গরু বহনকারী ভটভটির সংঘর্ষে মো. বাবু (৫৫) নামে এক গরু ব্যবসায়ী নিহত ও চারজন আহত হয়েছেন। নিহত বাবু আক্কেলপুর পৌরসভার মাঝগ্রাম মহল্লার ইয়াদ আলীর ছেলে। আহতদের আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা