kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩ ডিসেম্বর ২০২০। ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

গলা কেটে হত্যার পর লাশের ওপর মুরগির খামার

তিন ফুট মাটি খুঁড়ে লাশ উদ্ধার

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৭ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




গলা কেটে হত্যার পর লাশের ওপর মুরগির খামার

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে এক ব্যক্তিকে গলা কেটে হত্যার পর ঘটনা ধামাচাপা দিতে লাশের ওপর মুরগির খামার নির্মাণ করেছেন খুনি। গত শনিবার সন্ধ্যায় এলাকাবাসী হত্যায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশে দেয়। পরে তাঁর স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গভীর রাতে তিন ফুট মাটি খুঁড়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গতকাল রবিবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যার বর্ণনা দিয়েছেন অভিযুক্ত ব্যক্তি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ড উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর সলিমপুর গ্রামের লাল মিয়া কলোনিতে একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার পাইকপাড়ার মো. রমজান আলীর ছেলে রুমেন মিয়া (৩০) ও সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের কেশবপুরের নুরুল হকের ছেলে মো. নুর উদ্দিন (৩৭)। পরিচয়ের সূত্র ধরে নুর উদ্দিন নিজ ঘরে আশ্রয় দিয়েছিলেন রুমেনকে। দীর্ঘদিন তাঁরা একসঙ্গে বসবাসের একপর্যায়ে গত ১৩ আগস্ট হঠাৎ নিখোঁজ হন নুর। এর পর থেকে রুমেনের আচরণে কিছুটা পরিবর্তন লক্ষ করেন বাড়ির অন্য বাসিন্দারা। ১৫ আগস্ট সন্ধ্যায় নুরের স্ত্রী বাড়িওয়ালার কাছে গিয়ে জানান, রুমেনই নুরকে খুন করে লাশ লুকিয়ে রেখেছেন। এ কথা কাউকে বললে তাঁর সন্তানদেরও হত্যার হুমকি দিয়েছেন রুমেন। এরপর এলাকাবাসী রুমেনকে আটক করে পুলিশে দেয়। গভীর রাতে রুমেনের দেখানো মতে তাঁর নবনির্মিত মুরগির খামারের ভেতর তিন ফুট মাটির নিচ থেকে নুরের লাশ উদ্ধার করা হয়। হত্যার পর লাশ পুঁতে তার ওপর খামারটি নির্মাণ করেন রুমেন।

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, ‘নিহতের স্ত্রী জানিয়েছেন, রুমেনকে নিজ ভাইয়ের মতো রেখেছিলেন নুর উদ্দিন। থাকা-খাওয়ার বিনিময়ে রুমেন কিছু টাকা দিতেন নুরকে। কিন্তু গত কয়েক মাসে টাকা না দেওয়া নিয়ে দুজনের মধ্যে ঝগড়া বাধে। এর জের ধরে গত বৃহস্পতিবার নুরকে গলা কেটে হত্যা করেন রুমেন। এ সময় নুরের স্ত্রী বাধা দিলে তাঁর শরীরেও ধারালো অস্ত্রের আঘাত লাগে। কিন্তু রুমেন তাঁকে ভয় দেখিয়ে বলেন, ঘটনা কাউকে জানালে তাঁর সন্তানদেরও হত্যা করবেন রুমেন। তাই দুই দিন ঘটনা চেপে রাখলেও শনিবার নুরের স্ত্রী সব কিছু প্রকাশ করেন। এরপর আমরা লাশ উদ্ধার করি।’

এ ঘটনায় গতকাল সীতাকুণ্ড থানায় মামলা করেছেন নুর উদ্দিনের স্ত্রী।

মন্তব্য