kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

শ্রীলঙ্কায় ফের দুই ভাইয়ের রাজত্ব

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্রীলঙ্কায় ফের দুই ভাইয়ের রাজত্ব

বিশ্বজুড়ে কট্টর জাতীয়তাবাদী রাজনীতির যে জয়জয়কার, তার ব্যত্যয় ঘটেনি শ্রীলঙ্কার নির্বাচনেও। দেশটির পার্লামেন্ট নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের দল শ্রীলঙ্কা পদুজানা পার্টি (এসএলপিপি)।

বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে ও তাঁর ভাই মাহিন্দা রাজাপক্ষে—এই দুজন এখন পুরো ক্ষমতাকাঠামো নিজেদের

কবজায় নেওয়ার চেষ্টা করবেন। বিশেষ করে সংবিধান সংশোধন করে পুলিশ বাহিনী ও বিচারব্যবস্থাকে নিজেদের অধীন করে ফেলবেন তাঁরা। দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকতে বিলুপ্ত করা হতে পারে প্রেসিডেন্টের মেয়াদকালও।

করোনা মহামারির কারণে দুই দফা পেছানোর পর গত বুধবার শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। চূড়ান্ত ফল ঘোষণা করা হয় গতকাল শুক্রবার। এতে দেখা গেছে, ২২৫টি আসনের মধ্যে এসএলপিপি পেয়েছে ১৪৫টি। এর বাইরে জোটগতভাবে পাঁচটি আসনেও তাদের প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের দল পেয়েছে মাত্র একটি আসন।

প্রায় দুই দশক শ্রীলঙ্কার ক্ষমতায় ছিল বিতর্কিত রাজাপক্ষে পরিবার। বিতর্কের মূলে রয়েছে ৩৭ বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধ, যেটি শেষ হয় ২০০৯ সালে। জাতিসংঘের হিসাবে, সরকারি সেনা ও তামিল বিদ্রোহীদের মধ্যকার ওই গৃহযুদ্ধে এক লাখের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। অভিযোগ আছে, যুদ্ধের শেষ দিকে সেনারা ৪০ হাজার বেসামরিক তামিল নাগরিককে হত্যা করে। এ জন্য দায়ী করা হয় রাজাপক্ষে পরিবারকে।

২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে ছিলেন মাহিন্দা। কিন্তু স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতিকে কেন্দ্র সৃষ্ট দলীয় কোন্দলের কারণে ক্ষমতাচ্যুত হন তিনি। আরেক ভাই গোতাবায়া ছিলেন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা, যিনি গত নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হন। প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পরই মাহিন্দাকে তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেন। মূলত এর পর থেকেই শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে রাজাপক্ষে পরিবারের নতুন অধ্যায় শুরু হয়। তবে বিশ্লেষকরা মনে করেন, ২০১৯ সালে শ্রীলঙ্কায় যে জঙ্গি হামলা হয়, মূলত তার পর থেকেই দেশটিতে জাতীয়তাবাদী রাজনীতির আধিপত্য বেড়ে যায়। সেই আধিপত্যের কারণেই দুই ভাই আবার ক্ষমতায় আসার সুযোগ পেয়ে যান। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা