kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী বললেন

১৩ জেলায় বন্যা আরো ভোগাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১৩ জেলায় বন্যা আরো ভোগাবে

দেশের ১৩ জেলায় বন্যা আরো ভোগাতে পারে। তবে আশার খবর হলো, আজ বুধবারের মধ্যে ছয় জেলার বানের পানি নেমে যেতে পারে। গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৭ জেলা বন্যাকবলিত হয়েছে। গতকাল মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ের সময় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এসব তথ্য জানান। এ সময় মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহসিন উপস্থিত ছিলেন।

ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ত্রাণ সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার মতো সক্ষমতা সরকারের আছে। বন্যাকবলিত জেলাগুলোতে আট হাজার ২১০ টন চাল, দুই কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ৭৪ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, গোখাদ্য কেনার জন্য ৪৮ লাখ টাকা এবং শিশুখাদ্য কেনার জন্য ৪৮ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে। কোথাও কোথাও ভাঙনে ঘর নদীতে চলে গেছে। এ জন্য ঘর মেরামতে ৩০০ বান্ডেল ঢেউটিন এবং ৯ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘১২ জেলায় বন্যার পানি বেশি ঢুকেছে। এরই মধ্যে এক হাজার ৩৫টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ওই কেন্দ্রগুলোতে ২০ হাজার লোক আশ্রয় নিয়েছে। সেখানে জেলা প্রশাসকদের অনুকূলে পাঁচ লাখ টাকা করে মোট ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মোট বন্যা আক্রান্ত ইউনিয়নের সংখ্যা ৪৬৪টি, পানিবন্দি পরিবারের সংখ্যা দুই লাখ ৯৪ হাজার ২৭৪টি, বন্যায় মোট ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ১৪ লাখ ৫৭ হাজার ৮২৭ জন।’

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ব্রহ্মপুত্র, যমুনা ও পদ্মার পানি বাড়ছে। আগামী ৭২ ঘণ্টা পানি বাড়তে থাকবে। কুশিয়ারা ছাড়া উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকায় পানির সমতল কমছে, এটা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি আরিচা পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘আগামী ২৪ ঘণ্টায় তিস্তা ও ধরলার পানি কমবে। এ সময় নীলফামারী, লালমনিরহাট, সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা ও রংপুর জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে। অন্যদিকে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, দিনাজপুর, বগুড়া, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, নাটোর, নওগাঁ, মুন্সীগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর ও  রাজবাড়ীর বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা