kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

বৈঠকে সাবেক কূটনীতিকরা

কোটামুক্ত রপ্তানি সুবিধা বহালে উদ্যোগ জরুরি

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৪ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কোটামুক্ত রপ্তানি সুবিধা বহালে উদ্যোগ জরুরি

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে (এলডিসি) উত্তরণের পরও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি পণ্যের কোটামুক্ত রপ্তানি সুবিধা বহাল রাখার বিষয়ে আরো উদ্যোগ নিতে সরকারকে তাগিদ দিয়েছেন বাংলাদেশের কয়েকজন সাবেক কূটনীতিক। গত বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে তাঁরা এ তাগিদ দেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতিতে করণীয় নির্ধারণে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাবেক পররাষ্ট্রসচিব ও রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে ওই বৈঠক করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সংযুক্ত ছিলেন।

সাবেক পররাষ্ট্রসচিব ও রাষ্ট্রদূতদের মধ্যে এম আর ওসমানী, ফারুক সোবহান, সি এম শফি সামি, শমসের মোবিন চৌধুরী, এ কে এম আতিকুর রহমান,  মো. শহিদুল হক, মো. আব্দুল হান্নান, হুমায়ুন কবির, আহমদ তারিক করিম ও মহসীন আলী খান বৈঠকে অংশ নেন। তাঁরা ভূ-রাজনৈতিক বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও বহুপক্ষীয় উদ্যোগ গ্রহণের বিষয়ে আলোকপাত করেন। করোনা পরিস্থিতি ও করোনা-পরবর্তী সময়ের জন্য স্বল্পমেয়াদি, মধ্যমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণের সুপারিশ করেন তাঁরা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বেরিয়ে আসার পরও যেন বাংলাদেশ কোটামুক্ত সুবিধা পেতে পারে সে উদ্যোগ নেওয়ার তাগিদ দেন সাবেক কূটনীতিকরা। সমপ্রতি বাংলাদেশের কোটামুক্ত সুবিধা পাওয়ার প্রশংসা করেন তাঁরা। বাংলাদেশের ভারত, চীন, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশ ও আঞ্চলিক সংস্থার ঘনিষ্ঠতা বাড়ানো এবং দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক সম্পর্ক জোরদারকরণের উদ্যোগকে স্বাগত জানান আলোচকরা। এ ছাড়া বক্তারা করোনার টিকা তৈরি হলে বাংলাদেশসহ বিশ্বের উন্নয়নশীল ও স্বল্পোন্নত দেশগুলো যাতে উন্নত বিশ্বের মতো একইভাবে উপকৃত হতে পারে সে বিষয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রশংসা করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা