kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ আষাঢ় ১৪২৭। ৭ জুলাই ২০২০। ১৫ জিলকদ  ১৪৪১

হলি আর্টিজান হামলার চার বছর

মামলার পেপারবুক ছাপা শেষ পর্যায়ে

এম বদি-উজ-জামান   

১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মামলার পেপারবুক ছাপা শেষ পর্যায়ে

রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি ও রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলার চার বছর পূর্ণ হয়েছে গতকাল মঙ্গলবার। ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে জঙ্গিরা এই বেকারিতে হামলা চালিয়ে দেশি-বিদেশি মিলে ২৩ জনকে হত্যা করে। এই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নিম্ন আদালতে সাত জঙ্গিকে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় এখন হাইকোর্টে। প্রায় সাত মাস আগে নিম্ন আদালত থেকে রায়ের কপি পাঠানো হলেও হাইকোর্টে বিচার শুরু হয়নি এখনো। মামলাটির পেপারবুক প্রস্তুত না হওয়ার কারণেই বিচার শুরু করা যায়নি। পেপারবুক ছাপা না হওয়া পর্যন্ত মামলার বিচারকাজ শুরু করা যাবে না। তবে সরকারি ছাপাখানায় (বিজি প্রেস) ওই মামলার পেপারবুক প্রস্তুত শেষ পর্যায়ে বলে জানা গেছে। যদিও করোনাভাইরাস সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে মামলাটির পেপারবুক দ্রুত তৈরি বাধাগ্রস্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট মুখপাত্র সাইফুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মামলাটির পেপারবুক ছাপা শেষ পর্যায়ে। এটা হাইকোর্টে আসার পর প্রধান বিচারপতি একটি বেঞ্চ গঠন করে দেবেন মামলাটির বিচারের জন্য।’ অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানান, পেপারবুক আসার সঙ্গে সঙ্গে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মামলাটি নিষ্পত্তির পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে নিয়মিত বিচারকাজ বন্ধ রয়েছে। মহামারি করোনার প্রকোপ শেষ হওয়ার পর নিয়মিত আদালত খুললে আমরা মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তির পদক্ষেপ নেব।’

গত বছরের ২৭ নভেম্বর সাত জঙ্গিকে মৃত্যুদণ্ড দেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনাল। এই রায়ের পর ৫ ডিসেম্বর জঙ্গিদের মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে পাঠানো হয় ডেথ রেফারেন্স। এরপর সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মামলাটির বিচারকাজ শুরু করার জন্য পেপারবুক তৈরি করতে মামলার নথি পাঠায় বিজি প্রেসে। কিন্তু করোনা সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে পেপারবুক ছাপা হয়ে সুপ্রিম কোর্টে আসেনি এখনো। তবে বিশেষ উদ্যোগে পেপারবুক ছাপানোর কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। আলোচিত এই মামলাটির পেপারবুক হাইকোর্টে পৌঁছালেই মামলার বিচারের জন্য প্রধান বিচারপতি একটি হাইকোর্ট বেঞ্চ নির্ধারণ করে দেবেন। এরপর বিচারকাজ শুরু হবে। বিচার শেষে হাইকোর্টের রায়ের পর আসামিপক্ষ বা রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আপিল করার সুযোগ পাবে। আপিল বিভাগে বিচার শেষে রায় হওয়ার পর রিভিউ আবেদন করার সুযোগ থাকবে। এই রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তি হওয়ার পরই রায় কার্যকর করার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা