kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

চাঁদপুরে শিশুকে চুবিয়ে হত্যা

অভিযুক্ত গৃহকর্মী আটক

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদপুরে শিশুকে চুবিয়ে হত্যা

চাদপুরের শাহরাস্তিতে পাঁচ বছরের শিশুকে হাত বেঁধে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করেছে এক গৃহকর্মী। এ ঘটনার পর স্থানীয়দের সহায়তায় অভিযুক্ত ফাতেমা বেগমকে (২৫) আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার উপজেলার টামটা উত্তর ইউনিয়নের বলশিদ গ্রামে এ মর্মস্পর্শী ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, পাঁচ মাস আগে স্বামী পরিত্যক্তা ফাতেমা বেগম বলশিদ গ্রামের পুরান তালুকদারবাড়ির কাজল রেখার ঘরে গৃহকর্মীর কাজ করতেন।  এরপর আর কখনো সে ওই এই বাড়িতে না এলেও গতকাল শনিবার সকালে হঠাৎ হাজির হয়। এ সময় আদর করার নামে কাজল রেখার পাঁচ বছরের শিশু জান্নাতুল মাওয়াকে বাড়ির বাইরে নিয়ে যায় ফাতেমা বেগম। কয়েক ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ার পরও তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। ওই সময় কাজল তার শিশু সন্তানকে খুঁজতে বের হন। ততক্ষণে বাড়ির পাশের ডোবায় দুই হাত বাঁধা অবস্থায় শিশু জান্নাতুল মাওয়ার নিথর দেহ পাওয়া যায়। এ সময় পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে ডোবার পাশের বাগান থেকে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে গৃহকর্মী ফাতেমা। কিন্তু কাজল রেখার ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে অভিযুক্তকে হাতেনাতে আটক করে। পরে পুলিশের হাতে তুলে দেয় তারা।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মো. আহসান জানান, গৃহবধূ কাজল রেখার স্বামী আক্তার হোসেন চার বছর আগে ওমানে মারা যান। তার পর থেকে শিশুসন্তানকে নিয়ে বাবা খোরশেদ আলমের বাড়িতে থাকেন তিনি। শিশুসন্তানকে হারিয়ে কাজল রেখা জানান, ঠিকমতো কথা না শোনায় পাঁচ মাস আগে ফাতেমাকে কাজ করা থেকে বিদায় দেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ করে শনিবার বাড়িতে এসে ফাতেমা আমার সর্বনাশ করে দিল।  শিশুসন্তানকে হত্যার জন্য ফাতেমা বেগমের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন তিনি। ফাতেমা বেগমের বোন আরবের নেছা জানান, তাঁর বোন স্বামী পরিত্যক্তা। তাঁরা দুই বোন একসঙ্গে থাকেন। কেন যে সে এমন কাণ্ড করেছে তা বলতে পারছেন না তিনি।

শাহরাস্তি থানার ওসি মো. শাহ আলম জানান, ফাতেমা বেগমকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। কেন শিশুটিকে হত্যা করল, রাতে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মুখ খোলেনি ফাতেমা।

মন্তব্য