kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

করোনা উপসর্গ

৮ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই ভাইয়ের মৃত্যু

৯ জেলায় ১৬ জনের প্রাণহানি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



৮ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই ভাইয়ের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে চার দিন আগে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি হন দুই ভাই। এর মধ্যে শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাঁদের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখার পরামর্শ দেন চিকিৎসক। কিন্তু স্বজনরা চমেকসহ বিভিন্ন হাসপাতালে অনেক ধরনা দিয়েও তাঁদের জন্য আইসিইউ শয্যা (বেড) পায়নি বলে অভিযোগ। এরই মধ্যে গত শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে মৃত্যু হয় বড় ভাইয়ের। একইভাবে শ্বাসকষ্ট নিয়ে ছোট ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে আট ঘণ্টা পর রাত ১০টার দিকে। এই দুই ভাইয়ের বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায়।

আরো আট জেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক পুলিশ সদস্যসহ ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড, গাইবান্ধা ও ময়মনসিংহের ত্রিশালে দুজন করে এবং চট্টগ্রাম শহর, বরিশালের বানারীপাড়া ও মেহেন্দীগঞ্জ, পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ, মাগুরা, জামালপুরের সরিষাবাড়ী ও রাঙামাটিতে একজন করে রয়েছে। মৃতদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বিস্তারিত আমাদের আঞ্চলিক কার্যালয়, নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে—

হাটহাজারী : মৃত ব্যক্তিরা হলেন হাটহাজারী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব দেওয়াননগর জোহরা বাপের বাড়ির গোলাম রসুলের (মৃত) দুই ছেলে মধ্যপ্রাচ্যপ্রবাসী মো. শাহ আলম (৩৬) ও হাটহাজারী বাজারের এন জহুর মার্কেটের কাপড় ব্যবসায়ী মো. শাহজাহান (৩২)। দুবাইয়ের আবিরস্থ সবজি মার্কেটে কাজ করতেন শাহ আলম। গত জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে ছুটিতে দেশের বাড়িতে বেড়াতে এসে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে আটকা পড়েন তিনি। দুই ভাইয়েরই স্ত্রী-সন্তান রয়েছে।

শাহ আলমের খালাতো ভাই খোরশেদ বলেন, ‘চোখের সামনে দুই ভাইকে হারালাম শুধু আইসিইউর অভাবে। চিকিৎসকরা বলেছেন আইসিইউতে রাখতে, কিন্তু টাকা দিয়েও কোনো হাসপাতালে মেলেনি আইসিইউ শয্যা। সময়মতো করোনা পরীক্ষাও করাতে পারিনি সংশ্লিষ্টদের অসহযোগিতার কারণে। পরে তাঁদের নমুনা নেওয়া হলেও রিপোর্ট এখনো হাতে আসেনি।’

গাইবান্ধা : পলাশবাড়ী উপজেলা শহরের প্রফেসরপাড়ার মুক্তিযোদ্ধা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ময়েজউদ্দিন (৬৫) গতকাল সকালে এবং শুক্রবার রাতে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্বরের চাদোকানি খলশী গ্রামের আবদুর রহমান (৪৫) নিজ বাড়িতে মারা যান। ময়েজউদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে ও আবদুর রহমান এক সপ্তাহ ধরে সর্দি, কাশি, জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। ময়েজউদ্দিনকে পারিবারিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম : গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসিইউতে আমিরুল আজিজ (৫৩) নামের এক ব্যক্তি মারা যান। করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার হাসপাতালটিতে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। তাঁর বাসা নগরের বহদ্দারহাট এলাকায়।

সীতাকুণ্ড : সীতাকুণ্ডে জ্বর-শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে থানার উপপরিদর্শকসহ (এসআই) মো. একরামুল ইসলামসহ (৪৫) দুজনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যজন হলেন সলিমপুর ইউনিয়নের পাক্কা রাস্তার মাথা এলাকার বাসিন্দা ও আফতাব অটোমোবাইলের শ্রমিক মো. শাহা আলম। এসআই একরাম কুমিল্লার লাকসামের কাঁঠালপাড়া গ্রামের শামছুল আলমের (মৃত) ছেলে। তিনি সাত-আট দিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। এ কারণে ১ জুন থেকে তিনি পৌরসদরে ভাড়াবাসায় ছুটিতে ছিলেন। গতকাল সকালে এমরান শরীর বেশি খারাপ লাগছে বলে জানালে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুর উদ্দিনকে অ্যাম্বুল্যান্স পাঠিয়ে তাঁকে হাসপাতালে নেন। সেখানে চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে একরাম মারা গেছেন বলে জানান।

বানারীপাড়া : কয়েক দিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভোগা বানারীপাড়া উপজেলার বাসিন্দা এবং চাঁদপুর ১৫০ মেগাওয়াট কম্বাইনড বিদ্যুৎ উৎপাদনকেন্দ্রের ফোরম্যান ও শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন (৫৩) শুক্রবার রাতে মারা গেছেন। এ দিন সন্ধ্যায় চাঁদপুর থেকে তাঁকে বানারীপাড়া শহরের বাড়িতে নিয়ে আসার পর তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। পরে তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

স্বরূপকাঠি : পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে থাকা সখিনা বেগম (৬৫) গতকাল দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তিনি বানারীপাড়া উপজেলার ইলুহার গ্রামের মৃত আব্দুল হাইয়ের স্ত্রী। তাঁর বমি, পাতলা পায়খানা ও মৃদু শ্বাসকষ্ট ছিল।

গোয়ালন্দ : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ আইডিয়াল হাই স্কুলের সহকারী শিক্ষক, ইংরেজি দৈনিক নিউনেশনের গোয়ালন্দ উপজেলার সাবেক প্রতিনিধি রিয়াজুল ইসলাম মোল্লা (৫২) শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান। তিনি জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। তাঁর বাড়ি গোয়ালন্দের কলেজপাড়ায়।

মাগুরা : জেলা ২৫০ শয্যার হাসপাতালে গতকাল শ্বাসকষ্ট ও জ্বর নিয়ে জাহিদুল মুন্সি  (৮৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। তাঁর বাড়ি মাগুরা সদরের পারনান্দুয়ালী পূর্ব মুন্সিপাড়া গ্রামে।

বরিশাল : মেহেন্দীগঞ্জে করোনা উপসর্গ (জ্বর ও গলা ব্যথা) নিয়ে মৃত মিজানুর রহমানের লাশ দাফনে পরিবার ও প্রতিবেশীরা রাজি না হওয়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শুক্রবার রাতে দাফন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে তাঁর মৃত্যু হয়। তিনি উপজেলার বাহেরচর গ্রামের জমাদ্দার বাড়ির বাসিন্দা।

ত্রিশাল : গতকাল ত্রিশালে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন- উপজেলার মধ্য বালিপাড়া গ্রামের মৃত বালাম মিয়ার ছেলে ও ধলা আদর্শ শিশু নিকেতনের প্রধান শিক্ষক কামরুল হুদা শাকের মাস্টার (৪৮) এবং বীররামপুর গ্রামের হাসনাহেনা বেগম (৬৫)। শাকের ময়মনসিংহের এসকে হাসপাতালে (সূর্য কান্ত) এবং হাসনাহেনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মারা যান।

সরিষাবাড়ী : সরিষাবাড়ী উপজেলার চরবালিয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ঢাকাফেরত জাহানারা বেগম (৪৭) নামে এক নারীর মৃত্যু হয় শুক্রবার রাতে। ১৪ দিন ধরে জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি ও গলাব্যথায় ভোগ ছিলেন চরবালিয়ার হায়দর আলীর স্ত্রী জাহানারা।

রাঙামাটি : জেলা শহরের ভেদভেদী বাজার এলাকার এক বৃদ্ধ (৭০) করোনাভাইরাস উপসর্গ নিয়ে গতকাল বিকেলে মারা গেছেন। তিনি শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। তাঁর এক ছেলের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় দুই দিন আগে। এরপর থেকে পরিবারটিকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

মন্তব্য