kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২ জুন ২০২০। ৯ শাওয়াল ১৪৪১

করোনা উপসর্গ নিয়ে নারীসহ মৃত ৬

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনা উপসর্গ নিয়ে নারীসহ মৃত ৬

ঢাকাসহ সারা দেশে গতকাল রবিবার করোনাভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে এক নারীসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। আর জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ঢাকা থেকে রংপুর যাওয়ার পথে বগুড়ায় বাসস্ট্যান্ডে ফেলে যাওয়া ব্যক্তি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) নিশ্চিত করেছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনের নিচতলায় আইসোলেশন ওয়ার্ডে গতকাল দুপুরে করোনার উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি (৫০) মারা গেছেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়।

নতুন ভবনের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল হোসেন জানান, ওই ব্যক্তি নতুন ভবনের মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলেন। তাঁর শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে তাঁকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে নেওয়া হয়। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার ফলের ওপর নির্ভর করে তাঁর মরদেহ সৎকারের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার মারুকা ইউনিয়নের চক্রতলা গ্রামের সাতটি পরিবারকে লকডাউন করার ১২ ঘণ্টা পর করোনার উপসর্গ থাকা এক ব্যক্তি (৫৫) গতকাল সকালে মারা যান। দুপুরে তাঁকে দাফন করা হয়। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাক (পিপিই) পরে তাঁকে দাফন করেন। পরে সেসব পোশাক পুড়িয়ে ফেলা হয়।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. মো. শাহীনূর আলম সুমন দাফনের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ওই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম খানও এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

বাগেরহাটের রামপাল উপজেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে সাবেক এক ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মারা গেছেন। গতকাল সকালে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি।

রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুকান্ত কুমার পাল জানান, ওই ব্যক্তি গত ২৪ মার্চ ঢাকার মিরপুরে একটি কমিউনিটি সেন্টারে এক সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এরপর বাড়িতে ফিরে জ্বর, সর্দি, কাশি, গায়ে ব্যথায় ভুগছিলেন। তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তুষার কুমার পাল জানান, মৃত ব্যক্তির গ্রামের বাড়িসহ আত্মীয়-স্বজনকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার হোগলা ইউনিয়নে গতকাল করোনার লক্ষণ নিয়ে এক নারী (৪৫) মারা গেছেন। তিনি দুই দিন ধরে জ্বর, পাতলা পায়খানা ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। তাঁর মৃত্যুর খবরে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার জানান, প্রাথমিক তথ্যের ভিত্তিতে রোগী ও তাঁর সংস্পর্শে আসা কয়েকজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

পূর্বধলা থানার ওসি তাওহীদুর রহমান বলেন, ওই নারীর বাড়ির আশপাশের ১০টি পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টিন পালনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বগুড়া শহরে ছেলের বাড়িতে বেড়াতে এসে জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট নিয়ে এক ব্যক্তি (৭০) মারা গেছেন। গত শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মারা যান তিনি। তাঁর বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায়।

বগুড়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সামির হোসেন বলেন, ওই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর কিংবা রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় করোনার লক্ষণ নিয়ে গতকাল এক ব্যক্তি (৭০) নিজ বাড়িতে মারা গেছেন। জ্বর, সর্দি ও কাশিতে ভুগছিলেন তিনি। উপজেলার গুমানীগঞ্জ ইউনিয়নে তাঁর মৃত্যুর পর এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মজিদুল ইসলাম জানান, তাঁর শরীরে করোনার কোনো লক্ষণ ছিল না। তিনি অ্যাজমায় ভুগছিলেন।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মন জানান, অন্য কোনো রোগে তাঁর মৃত্যু হতে পারে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই।

বগুড়ায় বাসস্ট্যান্ডে ফেলে যাওয়া ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত

জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ঢাকা থেকে রংপুরে যাওয়ার পথে বগুড়ায় বাসস্ট্যান্ডে ফেলে যাওয়া সেই ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতির কথা নিশ্চিত করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। গত ২৯ মার্চ ভোররাতে বগুড়ার মহাস্থান বাসস্ট্যান্ডে ওই ব্যক্তিকে ফেলে যাওয়া হয়।

এ ছাড়া চার দিন আগে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে আইসোলেশনে মারা যাওয়া ১৩ বছরের শিশুর শরীরে করোনার উপস্থিতি মেলেনি বলে জানিয়েছেন হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক এ টি এম নুরুজ্জামান। তিনি বলেন, গতকাল রবিবার পর্যন্ত আইসোলেশনে করোনার উপসর্গ নিয়ে দুই নারীসহ আরো তিনজন ভর্তি হয়েছেন।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আলমগীর কবির বলেন, ওই ব্যক্তি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় মহাস্থান থেকে যেসব ব্যক্তি তাঁর সংস্পর্শে এসেছে, তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা