kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২ জুন ২০২০। ৯ শাওয়াল ১৪৪১

এক দিনে সর্বোচ্চ ১৮ জন আক্রান্ত

আরো একজনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক দিনে সর্বোচ্চ ১৮ জন আক্রান্ত

দেশে এক দিনে সর্বোচ্চ ১৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে আরো একজনের মৃত্যু ঘটেছে। আর তিনজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে। গতকাল রবিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান।

একই ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ জানান, এ পর্যন্ত দেশে মোট করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৮৮ জনের মধ্যে। যাদের ভেতর ৩৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছে, ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ৪৬ জনের মধ্যে ৩২ জনকে হাসপাতালে রেখে এবং ১৪ জনকে বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত মোট পরীক্ষা হয়েছে দুই হাজার ৯১৪ জনের। আইসোলেশনে আছে ৮৪ জন।

ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান নিজের ও অন্যের নিরাপত্তায় সবাইকে আরো সতর্ক হয়ে ঘরে থাকার জন্য অনুরোধ জানান। সেই সঙ্গে তিনি সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, যিনি মারা গেছেন তাঁর বয়স ৫৫ বছর। তিনি নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা। ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, এখন দেশের ১৪টি পরীক্ষা কেন্দ্র চালু আছে। এসব কেন্দ্রে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ১৮ জনকে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। যাদের ভেতর ১৩ জন শনাক্ত হয়েছে আইইডিসিআরের পরীক্ষায়। বাকি পাঁচজন শনাক্ত হয়েছে অন্যান্য কেন্দ্রে।

ড. ফ্লোরা জানান, নতুন আক্রান্ত ১৮ জনের মধ্যে ১৫ জন পুরুষ আর তিনজন নারী। তাদের মধ্যে ১১-২০ বছরের কোঠায় একজন, ৩১-৪০ বছরের কোঠায় দুজন, ৪১-৫০ বছরের কোঠায় চারজন, ৫১-৬০ বছরের কোঠায় ৯ জন এবং ষাটোর্ধ্ব ৯ জন।

এ পর্যন্ত ঢাকার বাসাবো এলাকায় সবচেয়ে বেশি ৯ জন রোগী পাওয়া গেছে। টোলারবাগে ছয় এবং মিরপুরের বাকি অংশে পাঁচজনের শরীরে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে।

রাজধানীর ২৯টি স্থানে ৫২ জন আক্রান্ত। স্থানগুলো হলো : বাসাবো : ৯ জন, মিরপুরের টোলারবাগ : ৬ জন, পুরান ঢাকার শোয়ারীঘাট : ৩ জন, বসুন্ধরা : ২ জন, ধানমণ্ডি : ২ জন, যাত্রাবাড়ী : ২ জন, মিরপুর-১০ : ২ জন, মোহাম্মদপুর : ২ জন, পুরানাপল্টন : ২ জন, শাহ আলীবাগ : ২ জন, উত্তরা : ২ জন। এ ছাড়া রাজধানীর আরো ১৮টি স্থানে একজন করে করোনা রোগী পাওয়া গেছে। স্থানগুলো হলো বুয়েট এলাকা, সেন্ট্রাল রোড, ইস্কাটন, গুলশান, গ্রিনরোড, হাজারীবাগ, জিগাতলা, মিরপুরের কাজীপাড়া, মিরপুর-১১, লালবাগ, মগবাজার, মহাখালী, নিকুঞ্জ, রামপুরা, শাহবাগ, উর্দু রোড ও ওয়ারী। এদিকে এখন পর্যন্ত  ১১টি জেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে আইইডিসিআর। জেলাগুলো হলো—ঢাকা, মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ, গাইবান্ধা, গাজীপুর, চুয়াডাঙ্গা, কুমিল্লা, কক্সবাজার, শরীয়তপুর, রংপুর ও চট্টগ্রাম।

রাজনগরে মৃত ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত ছিলেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার জানান, মৌলভীবাজারের রাজনগরে মারা যাওয়া সাঞ্চু মিয়া (৪৫) করোনাভাইরাস আক্রান্ত ছিলেন। মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন ডা. তাওহীদ আহমদ বলেন, ‘ঢাকা থেকে টেলিফোনে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে যে রাজনগরে মারা যাওয়া ব্যক্তি করোনা পজিটিভ ছিলেন। ফলে এই প্রথম মৌলভীবাজার জেলায় করোনা পজিটিভি শনাক্ত হলো।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা