kalerkantho

রবিবার। ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৭ জুন ২০২০। ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

ওইসিডি দূতাবাসগুলোকে সরকারের বার্তা

করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশও বড় সংকটে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৩ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশও বড় সংকটে

নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) মহামারি মোকাবেলায় বিশ্বের অন্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও নজিরবিহীন সংকটে পড়েছে। উন্নত দেশগুলোর জোট ‘অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থার (ওইসিডি)’ সদস্য আটটি দেশের ঢাকার দূতাবাসকে গত বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বার্তায় এ কথা বলা হয়েছে।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে ওইসিডি সদস্য দেশগুলোর কূটনৈতিক মিশনগুলোর (দক্ষিণ কোরিয়া ও তুরস্ক ছাড়া) রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনাররা গত সোমবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে পাঠানো চিঠিতে করোনাভাইরাসের নজিরবিহীন সংকটের কথা উল্লেখ করেন। এ ছাড়া তাঁরা বাংলাদেশকে সহযোগিতা করারও প্রস্তাব দেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গত বুধবার ঢাকায় অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, স্পেন, সুইডেন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) দূতাবাসকে পাঠানো বার্তায় বলা হয়েছে, বাকি বিশ্বের মতো বাংলাদেশও যে করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় নজিরবিহীন সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে সে বিষয়ে ওইসিডি রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও একমত।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরো বলেছে, ‘করোনাভাইরাস যাতে না ছড়ায় সে জন্য বিশ্বের প্রায় সব দেশের মতো বাংলাদেশ সরকারকেও কঠিন উদ্যোগ নিতে হয়েছে। জনগণের সুরক্ষায় এসব উদ্যোগ প্রয়োজনীয় হলেও সেগুলো গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ ছিল না।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওইসিডি দেশগুলোর কূটনৈতিক মিশনগুলোকে দুটি স্পষ্ট বার্তা দিয়েছে। এর প্রথমটি হলো, করোনা মহামারি মোকাবেলায় ওইসিডি দেশগুলোর বৈশ্বিক উদ্যোগ ও প্রস্তাব এবং মহামারির মানবিকসহ অর্থনৈতিক, সামাজিক প্রভাব মোকাবেলার পরিকল্পনাকে বাংলাদেশ সরকার স্বাগত জানায়। ওইসিডি দেশগুলোর বিশেষজ্ঞ ও সরঞ্জাম সহায়তাকে বাংলাদেশ যথাসময়ে স্বাগত জানাবে।

দ্বিতীয় বার্তাটি বাংলাদেশ থেকে বিদেশে ফ্লাইট চলাচল বিষয়ে। বাংলাদেশ থেকে বিদেশিদের যাতায়াত বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, দূতাবাসগুলো তাদের নাগরিকদের ‘চার্টার’ (বিশেষ) ফ্লাইটযোগে বাংলাদেশ থেকে বাইরে নিয়ে যেতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরকারের অন্য কর্তৃপক্ষগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে প্রয়োজনীয় অনুমতি দেবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের আরো জানিয়েছে, বেশ কিছু দেশ এরই মধ্যে বিশেষ ফ্লাইটযোগে তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নিয়ে গেছে। আগামী দিনগুলোতে আরো বিশেষ ফ্লাইট যাওয়ার কথা রয়েছে।

নিয়মিত ফ্লাইট চলাচল বন্ধ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওইসিডি দূতাবাসগুলোকে বলেছে, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় অনেক দেশের মতো বাংলাদেশকেও কয়েকটি দেশের সঙ্গে ফ্লাইট কার্যক্রম স্থগিত করতে হয়েছে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে যখনই সুযোগ সৃষ্টি হবে তখনই বাংলাদেশ সরকার নিয়মিত বাণিজ্যিক ফ্লাইট কার্যক্রম শুরু করবে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওইসিডি মিশনগুলোকে আশ্বস্ত করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা