kalerkantho

সোমবার  । ১৬ চৈত্র ১৪২৬। ৩০ মার্চ ২০২০। ৪ শাবান ১৪৪১

শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী শাকিল গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী শাকিল গ্রেপ্তার

শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের অন্যতম সহযোগী মাজহারুল ইসলাম ওরফে শাকিল ওরফে শাকিল মাজাহার (৩৫) ধরা পড়েছেন। গতকাল শনিবার ভোরে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে র‌্যাব-২-এর সদস্যরা তাঁকে গ্রেপ্তার করেছেন। এ সময় তাঁর দেহ তল্লাশি করে কোমরে গোঁজা অবস্থায় দুটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন ও ছয়টি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, র‌্যাব-২-এর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে, শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের ডানহাত হিসেবে পরিচিত সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজ শাকিল মাজাহার রাজধানীর মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছেন। তাঁকে ধরতে র‌্যাব গত শুক্রবার রাতে ওই এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে সন্দেহভাজন ব্যক্তি ও যানবাহনে তল্লাশি শুরু করে। অবশেষে গতকাল ভোর সোয়া ৫টার দিকে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশা থেকে শাকিলকে আটক করা হয়।

র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, শাকিল দীর্ঘদিন ধরে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের পক্ষে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন। ২০১৬ সালের জুন মাসে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহসম্পাদক রাজিব হত্যা মামলার এজাহারে নাম আসার চার দিন পর শাকিল চীনে পালিয়ে যান। তিনি ২০১৭ সাল পর্যন্ত চীনে অবস্থান করে কার্গো সার্ভিসের কাজ করতেন। ২০১৮ সালে তিনি চীন থেকে দুবাইয়ে পাড়ি জমান এবং গত জানুয়ারি পর্যন্ত সেখানেই ছিলেন। আর দুবাইয়ে থাকা অবস্থায়ই শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে শাকিলের পরিচয় হয়। সেখানে জিসানের পক্ষে শ্রমিক-দালালির কাজ করতেন তিনি। আর শ্রমিকদের জন্য বরাদ্দ আবাসিক ভবনে অবস্থান করে জিসানের সঙ্গে মিলে শাকিল সহযোগীদের মাধ্যমে বাংলাদেশে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করতেন।

শাকিল গত ১২ জানুয়ারি দেশে ফিরে আসেন। উদ্দেশ্য ছিল, দেশে জিসানের নির্দেশনা ও সহায়তায় আন্ডারওয়ার্ল্ডে ফের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করা। দেশে ফিরে শাকিল রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি হন। উদ্দেশ্য ছিল, হাসপাতালে বড় কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টির মাধ্যমে নিজেদের উপস্থিতির জানান দেওয়া।

শাকিল নিখোঁজ মর্মে জিডি : এদিকে সায়েম মাহমুদ নামের এক ব্যক্তি শাকিলের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে গত শুক্রবার শাহবাগ থানায় একটি জিডি করেন। তাতে উল্লেখ করা হয়, শাকিল হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তাঁর সঙ্গে এলাকার ছোট ভাই শরীফুল ইসলাম শাওনও ছিলেন। গত ২০ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১১টার দিকে হাসপাতালে গিয়ে তিনি ওই দুজনকে খুঁজে পাননি। তাঁদের মোবাইল ফোনও বন্ধ পান তিনি।

শাকিলের বাবার নাম আব্দুল খালেক। বাড়ি ফেনীর দাগনভূঞার সাদেকপুর গ্রামে। ২০০৫ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ছাত্ররাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ২০১৫ সালে রেলওয়ের টেন্ডারের কাজ নিয়ে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন।

এদিকে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান আহমেদ গত বছরের অক্টোবর মাসে দুবাই পুলিশের হাতে ধরা পড়ার খবর প্রকাশ হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের প্রধান সারওয়ার বিন কাশেম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা ইন্টারপোলের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, দুবাইয়ে জিসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলমান।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা