kalerkantho

সোমবার । ২৩ চৈত্র ১৪২৬। ৬ এপ্রিল ২০২০। ১১ শাবান ১৪৪১

বিমানবন্দরে বসেছে সর্বাধুনিক বডি স্ক্যানার

অস্ত্র মাদক ধরা পড়বে সহজেই

মাসুদ রুমী   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অস্ত্র মাদক ধরা পড়বে সহজেই

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বিমানবন্দরগুলোর মতো বাংলাদেশের প্রধান কয়েকটি বিমানবন্দরেও সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বসানো হয়েছে সর্বাধুনিক ‘প্রোভিশন-২’ স্ক্যানার। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসহ তিনটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এরই মধ্যে এগুলো স্থাপন করা হয়েছে। ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণসংক্রান্ত প্রশিক্ষণ শেষে দ্রুতই এগুলো চালু করা হবে। অস্ত্র, বিস্ফোরক, মাদকসহ অবৈধ পণ্য নিয়ে যাত্রী বিমানবন্দরে ঢুকলে এর মাধ্যমে সহজেই তা ধরা পড়বে।

বিমানবন্দরগুলোতে সর্বাধুনিক এই বডি স্ক্যানারে একজন যাত্রীকে স্ক্যান করতে সময় লাগবে দেড় থেকে দুই সেকেন্ড। সে হিসাবে ঘণ্টায় ২০০ থেকে ৩০০ যাত্রীকে স্ক্যান করা যাবে। আট ফুট উঁচু ছোট্ট একটি কাচের ঘরের আকারের স্ক্যানারটি স্বয়ংক্রিয়ভাবেই যাত্রীর শরীরে, এমনকি অন্তর্বাসের ভেতর লুকিয়ে রাখা অস্ত্র, বিস্ফোরক, বোমা তৈরির উপকরণ, মাদকসহ লুকিয়ে রাখা যাবতীয় জিনিস শনাক্ত করবে। আর তা ভেসে উঠবে স্ক্যানারের সঙ্গে সংযুক্ত মনিটরে।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্রে জানা যায়, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দেশের তিনটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আন্তর্জাতিক টার্মিনালে চারটি এবং চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি করে ‘প্রোভিশন-২’ স্ক্যানার বসানো হয়েছে। জাইকার অর্থায়নে সংযুক্ত স্ক্যানারগুলো অবশ্য এখনো পুরোপুরি চালু করা হয়নি। পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শেষে সহসাই এসব অত্যাধুনিক স্ক্যানার সচল করা হবে।

বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান গত মঙ্গলবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘উন্নত প্রযুক্তির প্রোভিশন-২ স্ক্যানার এরই মধ্যে বিমানবন্দরে ইনস্টল করা হয়েছে। জাইকা থেকে চলতি সপ্তাহেই একটি প্রতিনিধিদল আসছে। তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউটর (এসওপি) দিলে আমরা অপারেশনে যাব। ম্যানুয়াল মেশিনে কোথাও মিস হতে পারে; কিন্তু সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় এই মেশিনে কোনো কিছু মিস হবে না।’

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বোর্ডিং গেটে নতুন এই স্ক্যানার বসানো হয়েছে বলে জানান পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ এইচ এম তৌহিদ-উল-আহসান। তিনি বলেন, ‘আমাদের বর্তমানে যে বডি স্ক্যানার আছে তাতে অস্ত্রসহ অনেক কিছুই ধরা পড়ে। তল্লাশি কার্যক্রম নিশ্ছিদ্র করতে আমরা এরই মধ্যে চারটি প্রোভিশন-২ স্ক্যানার বসিয়েছি। এটি আরো অত্যাধুনিক স্ক্যানার, যার মাধ্যমে যাত্রীর পুরো শরীর স্ক্যান হবে। এটা অনেকটা এক্স-রে মেশিনের মতো। যাত্রীর শরীরের যেকোনো স্থানে কোনো অবৈধ বস্তু থাকলে তা ধরা পড়বে। আমাদের লোকজনের প্রশিক্ষণ শেষে স্ক্যানারগুলো চালু করা হবে।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, অত্যাধুনিক বডি স্ক্যানার ‘প্রোভিশন-২’ মানুষের পোশাকের নিচে লুকিয়ে থাকা যেকোনো ক্ষুদ্র উপকরণও চুম্বকীয় বিকিরণের সাহায্যে শনাক্ত করতে সক্ষম। সর্বাধুনিক সিকিউরিটি টেকনোলজির এই স্ক্যানার বিমানবন্দরে ব্যবহারের জন্যই বিশেষভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিমুক্ত ‘রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি মিলিমিট্রিক ওয়েভস’ প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রোভিশন-২ যাত্রীর পুরো শরীর দ্রুত স্ক্যান করে।

শাহ আমানত বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার সারওয়ার-ই-জামান বলেন, ‘প্রোভিশন-২ বিমানবন্দরের পাশাপাশি ফ্লাইট সেফটি ও সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। নিরাপত্তা নিশ্চিতে আমরা আরো বেশি শক্তিশালী হব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা