kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

সাংবাদিকদের অর্থমন্ত্রী

ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হার পুনর্বিবেচনা হবে

আগামীতে সঞ্চয়পত্রের সুদ কমানোর ইঙ্গিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হার পুনর্বিবেচনা হবে

সরকার গত ১৩ ফেব্রুয়ারি হঠাৎ এক ঘোষণায় ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হার অর্ধেকে নামিয়ে আনে, যা নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে বিভিন্ন মহলে। গতকাল বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আশ্বাস দিলেন, ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হারের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হবে। তবে আগামীতে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

গতকাল বুধবার বিকেলে সচিবালয়ে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হারসংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, ‘যেহেতু ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হার প্রায় অর্ধেকে কমিয়ে আনা নিয়ে কথাবার্তা হচ্ছে, তাই বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হবে। এ বিষয়  নিয়ে আমরা আলাপ-আলোচনা করব। এখন হয়তো কিছু করতে পারব না, আগামী বাজেটের পর এটি নিয়ে কিছু করা হবে।’

ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদের হার কমানোর কারণ ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা এর আগে যখন সঞ্চয় বিক্রির ওপর কিছু নিয়ম-কানুন চালু করলাম তারপর দেখতে পেলাম সমাজের সেই অংশ যারা ছয়-সাত কোটি টাকা সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করত, তারা সবাই ডাকঘরে চলে গেল।’

আগামীতে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর ইঙ্গিত দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সঞ্চয়পত্র ও ডাকঘর সঞ্চয় স্কিম করা হয়েছিল সাধারণ মানুষের জন্য। কিন্তু এগুলোতে বড় ধরনের অপব্যবহার হয়েছে। সঞ্চয়পত্রের সুদের হারও বেশি। দেখি এটা নিয়েও কিছু করতে পারি কি না। সঞ্চয়পত্র নিয়ে দেশে কোনো নিয়ন্ত্রণ ছিল না। আমরা তো এগুলো চাইনি।’

ব্যাংকের সুদের হার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের এমন কোনো দেশ নেই যেখানে ব্যাংকে টাকা রাখলে এত বেশি সুদ দেওয়া হয়। এসব পদক্ষেপের মাধ্যমে বিশ্বের দেশগুলোর সঙ্গে এক জায়গায় যেতে না পারলেও কাছাকাছি যাওয়া যাবে। সরকারকে কর না দিয়ে সব (মুনাফা) নিয়ে যাওয়ার উদাহরণ খুব বেশি দেশে নেই। ব্যাংক খাতে সুদের হার এক অঙ্কে নিয়ে আসাটা অনেক বড় কাজ। এটা করতে গেলে সম্পর্কিত সব উপকরণে হাত দিতে হবে।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ সুদ পরিশোধ করতে না পেরে আত্মহত্যা করছে। পৃথিবীর কোনো দেশে এভাবে ব্যাংকে টাকা রাখলে সুদ দেওয়া হয় না, উল্টো টাকা দিতে হয়। যে দেশে ব্যবসা আছে, সে দেশে ব্যাংকে টাকা রাখে না। আমাদের কাছে সবাই সমান, ব্যবসায়ীদের কার্যকর সুদে টাকা দিতে হবে এটি আমাদের প্রতিশ্রুতি। না হলে ব্যবসা প্রসার হবে না, ছেলে-মেয়েদের কর্মসংস্থান হবে না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা