kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

বাগমারায় ‘গুপ্তধন’ রহস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাগমারায় ‘গুপ্তধন’ রহস্য

রাজশাহীর বাগমারায় নির্মাণাধীন একটি বাড়ি থেকে ‘গুপ্তধন’ উদ্ধার নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। পাঁচতলা ওই ভবনের টয়লেটের সেপটিক ট্যাংকের জন্য মাটি খননের কাজ করতে গিয়ে ওই গুপ্তধন পান পাঁচ শ্রমিক। এরপর থেকে শ্রমিকরা নিরুদ্দেশ। ওই পাঁচ শ্রমিককে খুঁজছে পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সমপ্রতি বাগমারার ভবানীগঞ্জের চাঁনপাড়া মহল্লার ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন তাঁর পুরনো বাড়ি ভেঙে সেখানে পাঁচতলা ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন। গত মঙ্গলবার নির্মাণাধীন ভবনসংলগ্ন স্থানে টয়লেটের সেপটিক ট্যাংক তৈরির জন্য মাটি খননকাজ শুরু করা হয়। চাঁনপাড়া মহল্লার ইবর উদ্দিনের ছেলে আলতাফ হোসেন (৩২) ও একই

এলাকার নির্মাণ শ্রমিক ওসমান (৩৫), দেউলিয়া গ্রামের নির্মাণ শ্রমিক রহিম উদ্দিনসহ (৪৫) আরো দুই শ্রমিক মাটি খনন করছিলেন। বিকেলে খননের শেষ পর্যায়ে শ্রমিকরা সেখানে একটি বিশাল আকৃতির মাটির কলসের খোঁজ পান। কলসটির চারপাশ ইট দিয়ে ঘেরা ছিল। কলস পাওয়ার পর শ্রমিকরা বেশ কৌতূহলী হয়ে ওঠেন। বিষয়টি বাড়ির মালিক আলমগীর জানার পর তিনি বাগমারা পুলিশকে অবহিত করেন। তার আগেই শ্রমিকরা পালিয়ে যায়। ওই দিন সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান বাগমারা থানার উপ-পরিদর্শক হাসান আলী। তিনি শ্রমিকদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।

উপ-পরিদর্শক হাসান আলী বলেন, ‘শ্রমিকরা অত্যন্ত ধূর্ত। তারা বারবার নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করছে। আমরা তাদের অবস্থান জানার ও আটকের চেষ্টা করছি।’

বাড়ির মালিক আলমগীর হোসেন জানান, শ্রমিকরা একটি কলসে ভরা গুপ্তধন পেয়েছে এটা প্রায় নিশ্চিত। কিন্তু তারা সেগুলো আত্মসাতের জন্য পালিয়ে গেছে।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান জানান, শ্রমিকদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। তাদের পাওয়া গেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা