kalerkantho

শনিবার । ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ইবি ছাত্রলীগ

এবার মার খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন সাধারণ সম্পাদক

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এবার মার খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন সাধারণ সম্পাদক

এবার নিজ সংগঠনের নেতাকর্মীদের হাতেই হামলার শিকার হলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। গতকাল পিটিয়ে তাঁকে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেওয়া হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে গিয়ে কর্মীদের হাতে পিটুনি খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদক ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে গেলে তাঁদের সঙ্গে সংগঠনের বিদ্রোহী কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় একাধিক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ২০ জন আহত হন। এর আগেও ক্যাম্পাসে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাঁদের চার দফা ধাওয়া দিয়ে বের করে দেন ছাত্রলীগের বিদ্রোহী কর্মীরা।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, কর্মীদের দ্বারা অবাঞ্ছিত ছাত্রলীগ সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের ক্যাম্পাসে প্রবেশের খবরে মঙ্গলবার সকাল থেকে উত্তপ্ত ছিল পরিস্থিতি। সকাল ১১টায় ছাত্রলীগ কর্মী হিসেবে পরিচিত অনিক, বিপুল, সোহাগ, আদিত, আবির ও ইমনের নেতৃত্বে দলীয় টেন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি প্রধান ফটকে গিয়ে সভাপতি ও সম্পাদক গ্রুপের তিন কর্মীকে মারধর করে। পরে দুপুর দেড়টার দিকে সভাপতি-সম্পাদকের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন কর্মী প্রধান ফটকে আসেন। তাঁদের সঙ্গে দুজন বহিরাগত ক্যাডারও ছিল বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় বিদ্রোহী কর্মীরা দলীয় টেন্ট থেকে মিছিল নিয়ে প্রধান ফটকে যান। পরে দুই গ্রুপ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় উভয় গ্রুপের হাতে বাঁশ, লাঠিসোঁটা ও রড ছিল বলে জানা গেছে। সংঘর্ষের সময় তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবসহ প্রায় ২০ জন কর্মী আহত হন। আহতদের মধ্যে দুজনকে কুষ্টিয়া মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্র থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে এবং রাকিবকে গ্রেপ্তারের দাবিতে দুপুর দেড়টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে খুলনা-কুষ্টিয়া মহাসড়ক অবরোধ করেন ছাত্রলীগের বিদ্রোহী কর্মীরা। দুপুর আড়াইটায় মহাসড়কে অবরোধ তুলে নিলেও ক্যাম্পাসের ফটকে তালা ঝুলিয়ে রাখেন কর্মীরা। এতে ক্যাম্পাসে ২টার শিফটের গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকে।

দায়িত্বরত প্রক্টর ড. আনিছুর রহমান বলেন, ‘ছাত্রলীগের এমন সংঘর্ষের গোয়েন্দা তথ্য ছিল। সকাল থেকেই পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। র‌্যাবও টহল দেয়। বর্তমানে ক্যাম্পাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।’

সম্পাদক রাকিব আটক : সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রলীগের আহত কর্মী ও আইন বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের হানিফ হোসাইন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ইবি থানায় মামলা করেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে আসামি করে মোট ১১ জনের নামে মামলার এজাহার করা হয়েছে। মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় আরো ২০-২৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। এই মামলায় কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আরিফ। তাঁকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা