kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

স্থানীয় সরকার নির্বাচন

প্রচারে এমপিদের সুযোগের দাবি তুলবে আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগের যৌথ সভায় ঢাকার দুই সিটিতে কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী নিশ্চিতে জোর দেওয়ার তাগিদ

৫ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



প্রচারে এমপিদের সুযোগের দাবি তুলবে আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগের যৌথ সভায় ঢাকার দুই সিটিতে কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী নিশ্চিতে জোর দেওয়ার তাগিদ তৈমুর ফারুক তুষার স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণের সুযোগ রাখার পক্ষে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বর্তমানে আরপিওতে সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়ার সুযোগ নেই। এর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে আপত্তি জানানোর ব্যাপারে মত দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি গতকাল রাতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথ সভায় এমন মত জানান। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে এমনটা জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানায়, যৌথ সভায় মূলত আসন্ন ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। দুই সিটিতে মেয়র ও কাউন্সিলর পদগুলোতে কিভাবে জয় পাওয়া যায় সে বিষয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের নানা পরামর্শ শোনেন শেখ হাসিনা। তিনি নিজেও নেতাদের নানা নির্দেশনা দেন।

সূত্রগুলো জানায়, যৌথ সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক আরপিওতে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের প্রচারণায় অংশ নেওয়ার নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘বিশ্বের কোথাও এমন আইন নেই। সব দেশেই সংসদ সদস্যরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নিতে পারেন। ভারতের বিভিন্ন নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত প্রচারণায় অংশ নেন। এমপি হিসেবে আমরা ২০১৬ সালেও স্থানীয় সরকার নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নিয়েছি। কিন্তু এখন আরপিও পরিবর্তন করায় আমরা সমস্যায় পড়েছি।’

আব্দুর রাজ্জাকের বক্তব্যের পর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘তোমরা এ বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে তোলো না কেন? সেখানে আমাদের পক্ষ থেকে আপত্তি জানাও। এ নির্বাচনে বাস্তবায়ন না হলেও যেন ভবিষ্যতে বাস্তবায়ন হয় সে চেষ্টা করতে হবে।’

সূত্রগুলো জানায়, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী রাখার ওপরে জোর দেন আওয়ামী লীগের নেতারা। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী রাখার বিষয়টি তুলে ধরেন। তাঁরা কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী না থাকলে শুধু কাউন্সিলর নয়, মেয়র পদেও জয় পেতে সমস্যা হবে বলে মন্তব্য করেন।

এ সময়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের ডেকে আলোচনার মধ্য দিয়ে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করার নির্দেশনা দেন। দরকার হলে দল মনোনীত প্রার্থী পরিবর্তনেরও নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা।

নির্বাচনে জয় পেতে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যেতে পরামর্শ দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, মিছিল, সমাবেশ করলে সেখানে শুধু দলের লোক আসে। সাধারণ ভোটাররা আসে না। সে জন্য সাধারণ ভোটারদের কাছে পৌঁছার কাজ করতে হবে। সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরতে হবে। ঢাকার দুই সিটিতে মেয়র পদে বিএনপি এমন কোনো আহামরি প্রার্থী দেয়নি মন্তব্য করে শেখ হাসিনা দলের নেতাদের সিরিয়াসলি কাজ করার নির্দেশনা দেন।

ঢাকা দক্ষিণে ঢাকাইয়া প্রার্থী হিসেবে সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার সন্তান ইশরাক হোসেনের সম্ভাবনা আদৌ আছে কি না সে বিষয়েও বৈঠকে আলোচনা ওঠে। এ সময়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য সানজিদা খানম বলেন, ‘আমাদের প্রার্থী ফজলে নূর তাপসের শ্বশুরবাড়ি ওয়ারি থানার বনগ্রামে। আর তাঁর নানার বাড়ি বরিশাল। ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে বরিশালেরও অনেক মানুষের বাস। ফলে আমরাই এগিয়ে থাকব।’

এ সময়ে আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস বলেন, ‘পুরনো ঢাকায় বিক্রমপুরের বহু মানুষ আছে। সেখানেও আমরা এগিয়ে থাকব।’

আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা সভায় বলেন, ‘একটি সুষ্ঠু ভোটের মধ্য দিয়ে আমাদের বিজয়ী হয়ে প্রমাণ করতে হবে মানুষ আমাদের পক্ষে আছে। বিএনপি এখনই বলতে শুরু করেছে যে ভোট সুষ্ঠু হবে না। তাদের সে বক্তব্য জনগণের সামনে ভুল প্রমাণ করতে হবে। তারা গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করেছিল যে বিএনপির প্রার্থীকে বসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। যদিও সে মিথ্যাচারে তারা সফল হয়নি। এটা আমাদের প্রাথমিক বিজয়।’

সভায় মুজিববর্ষে নানা কর্মসূচি পালনের বিষয়েও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের একাধিক সদস্য। মুজিববর্ষ উদ্‌যাপনে জাতীয় কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে দলীয় নেতাদের কাজ করারও নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা