kalerkantho

সোমবার । ২৯ আষাঢ় ১৪২৭। ১৩ জুলাই ২০২০। ২১ জিলকদ ১৪৪১

সাক্ষাৎকার

খোকনের সমর্থন পাবেন আশা তাপসের, একত্রে কাজ করবেন আতিকুল

তৈমুর ফারুক তুষার   

৩০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



খোকনের সমর্থন পাবেন আশা তাপসের, একত্রে কাজ করবেন আতিকুল

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দক্ষিণের মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকনের সমর্থন পাবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন। অন্যদিকে উত্তরের মেয়র পদে আবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ার পর বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, তিনি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে সমস্যা সমাধানের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবেন।

গতকাল রবিবার দুপুরে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলের মনোনীত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেন। এরপর সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন দলের দুই মেয়র প্রার্থী।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘আমি স্মরণ করছি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রয়াত মেয়র আনিসুল হককে। যিনি অল্প সময়ে প্রমাণ করেছিলেন সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করলে মানুষের দরজায় কিভাবে পৌঁছানো সম্ভব। সেটাকে পুঁজি করে আমি কাজ করতে চাই।’

নির্বাচিত হলে কোন কাজগুলো করবেন জানতে চাইলে তাপস বলেন, ‘জনগণ যদি আমাকে নির্বাচিত করে, দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আপামর জনগণের নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে আমার পূর্ণ সময় আমি কাজ করে যাব। ঢাকা-১০ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য হিসেবে কাজ করতে গিয়ে আমি উপলব্ধি করেছি, আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নত বাংলাদেশের জন্য কাজ করে চলেছেন। আমাদের রূপকল্প দিয়েছেন একটি উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণের। সেই উন্নত বাংলাদেশের জন্য একটি উন্নত রাজধানীর প্রয়োজন। সেই উন্নত রাজধানী গড়ার লক্ষ্যে এই সুযোগটা আমি গ্রহণ করব, জনগণের কাছে যাব।’ তিনি বলেন, ‘ঢাকা দক্ষিণের জনগণ যদি আমাকে নির্বাচিত করে, তাহলে বৃহৎ পরিসরে, ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার ঐতিহ্য সংরক্ষণ করব। পুরান ঢাকার অধিবাসীদের দীর্ঘদিনের অবহেলা ঘুচিয়ে তাদের সকল নাগরিক সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে।’

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন—এমন আশাবাদ জানিয়ে তাপস বলেন, ‘আমি আশা করি, আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গসংগঠন এবং আওয়ামী লীগের সবাই আমার জন্য কাজ করে যাবেন।’ বিদায়ী মেয়র সাঈদ খোকনের সমর্থন প্রত্যাশা করেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আশা করি উনি আমাকে সমর্থন করবেন।’

সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালনের পরও কেন মেয়র নির্বাচনে আগ্রহী হলেন জানতে চাইলে শেখ ফজলে নূর তাপস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মেয়র নির্বাচনে আসার ইচ্ছা আগে ছিল না। কিন্তু সংসদ সদস্য হিসেবে এলাকার কাজ করতে গিয়ে অনেক সমস্যা চোখে পড়েছে। এতেই বৃহত্তর পরিসরে কাজ করার আগ্রহ তৈরি হয়। দিনে দিনে জনগণের প্রত্যাশা পূরণের জায়গাটায় অনেক ফারাক রয়ে গেছে। তাই সিটি করপোরেশন নির্বাচন আসায় এটাতে কাজ করার সুযোগ মনে হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে আটটি সংসদীয় আসন। এসব এলাকার কাজ করতে গিয়ে বহুলাংশে সিটি করপোরেশনের ওপর নির্ভর করতে হয়। কাজ করতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রে হতাশ হয়েছি। জনগণের দোরগড়ায় সেবা পৌঁছে দিতে পারিনি। উন্মুক্তভাবে ময়লার স্তূপ রেখে দেওয়ার নজির পৃথিবীর কোনো দেশে নেই।’

কাজ না হওয়ার দায় কি শুধু মেয়র সাঈদ খোকনের, নাকি সব জনপ্রতিনিধি ও সরকারেরও—জানতে চাইলে তাপস বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে কারও ওপর দায় দিতে চাই না। দায় কার, সেটা জনগণ বিবেচনা করবে। তবে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করতে পারলে এসব ব্যর্থতা থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব।’

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় দলের সভাপতি ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘বাই ইলেকশন করে ৯ মাসে যে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছি, আপনারা জানেন, যেদিন থেকে দায়িত্ব পেয়েছি সেদিন থেকে একটি দিনও সময় নষ্ট করিনি।’

ভোটারদের উদ্দেশে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আসুন আমরা সবাই মিলে একটা সুন্দর ঢাকা শহর গড়ে তুলি। আমরা জানি আমাদের কী চ্যালেঞ্জ রয়েছে, এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হলে একসঙ্গে সবাই মিলে কাজ করতে হবে।’ ঢাকা দক্ষিণে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় শেখ ফজলে নূর তাপসকে অভিনন্দন জানান তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা