kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ জানুয়ারি ২০২০। ১০ মাঘ ১৪২৬। ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভোরে আটকের পর রাতে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভোরে আটকের পর রাতে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় গত শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গত শুক্রবার ভোরে এই দুজনসহ চারজনকে আটকের পর টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করেছিল র‌্যাব। পুলিশ ও র‌্যাবের ভাষ্যমতে, নিহত দুজন ইয়াবা কারবারি। ‘বন্দুকযুদ্ধের’ সময় ঘটনাস্থল থেকে ৯৫ হাজার পিস ইয়াবা, ছয়টি দেশীয় অস্ত্র ও ১৮ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গিখালী গাজীপাড়াসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় নিহতরা হলেন টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াবাজার এলাকার দিল মোহাম্মদের ছেলে মো. আমিন ওরফে নুর হাফেজ (৩২) ও হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গিখালী গ্রামের সব্বির আহমদের ছেলে মোহাম্মদ সোহেল।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, শুক্রবার ভোরে টেকনাফ থেকে আট লাখ ১০ হাজার পিস ইয়াবা, ছয়টি অস্ত্র ও ৭০ রাউন্ড গুলিসহ নুর হাফেজ, মোহাম্মদ সোহেলসহ চার ইয়াবা কারবারি ও ডাকাত সদস্যকে আটক করেন র‌্যাব-৭-এর সদস্যরা। রাতে র‌্যাব তাঁদের টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করে। থানায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চারজন আরো বিপুল পরিমাণ ইয়াবা মজুদ রয়েছে বলে তথ্য দেন। পরে পুলিশ চারজনকে নিয়ে রঙ্গিখালী গাজীপাড়াসংলগ্ন পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার অভিযানে যায়। সেখানে তাঁদের সহযোগী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা পুলিশকে দেখামাত্র গুলি চালিয়ে আটক দুই ইয়াবা কারবারিকে পুলিশের হাত থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। উভয় পক্ষের গোলাগুলিতে আটক দুজন গুলিবিদ্ধ হন। তাঁদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

র‌্যাব জানায়, নিহত নুর হাফেজ টেকনাফ পাহাড়ে আস্তানা গড়া রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিম বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড। তাঁদের বিরুদ্ধে সীমান্তে ইয়াবা কারবার নিয়ন্ত্রণ, সন্ত্রাস, ডাকাতি, অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা যায়, টেকনাফ সীমান্তে ফের ইয়াবা কারবারিরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ১৪ দিনে ১২ জন পাচারকারীসহ টেকনাফ সীমান্তে ১৮ লাখ ৩৩ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা