kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ওবায়দুল কাদের বললেন

মাস্তানি করে নেতা হওয়ার দিন শেষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মাস্তানি করে নেতা হওয়ার দিন শেষ

দলের কর্মীদের স্লোগান-পাল্টা স্লোগানে ক্ষুব্ধ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, স্লোগান দিয়ে নেতা বানানো যাবে না। বিলবোর্ডে সুন্দর সুন্দর ছবি, পোস্টারে কাউকে নেতা বানানো যাবে না। মাস্তানি করে নেতা হওয়ার দিন শেষ। তিনি বলেন, নেতা নির্বাচিত হবেন দলের পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি। নেতা হবেন ত্যাগী ও দুঃসময়ে যাঁরা নেতৃত্ব দিয়েছেন। সুখে-দুঃখে যাঁরা দলে ছিলেন তাঁরাই হবেন নেতা।

গতকাল শনিবার দুপুরে নগরের লালদীঘি মাঠে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে বক্তব্য দিতে শুরু করেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় মঞ্চের সামনে পদপ্রত্যাশী একাধিক নেতার ছবি উঁচিয়ে ধরে তাঁদের অনুসারীরা স্লোগান-পাল্টা স্লোগান দিলে সভায় বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। তাদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আপনারা কি বক্তব্য শুনবেন, নাকি স্লোগান শুনবেন। বাড়াবাড়ির একটা সীমা আছে। এটা বাড়াবাড়ি হচ্ছে। ঢাকা মহানগর সম্মেলনে যাদের নামে স্লোগান, বিলবোর্ড, পোস্টার হয়েছে, তাঁরা একজনও সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক হননি।’

অবশ্য সম্মেলন শুরুর এক ঘণ্টা আগে সভাস্থলের সামনের দিকে বসাকে কেন্দ্র করে সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী দুই নেতার অনুসারীদের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে।

দলীয় নেতাদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘নেতাদের বলতে চাই, খারাপ লোকে আওয়ামী লীগে দল ভারী করবেন না। বুয়েটের আবরারকে যারা হত্যা করেছে, এ রকম কর্মী আমাদের দরকার নেই। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে কথায় কথায় মারামারি করে, এমন কর্মী আমাদের দরকার নেই। রাজশাহীতে অধ্যক্ষকে পানিতে ফেলে দেয়, এমন কর্মী আওয়ামী লীগের দরকার নেই।’

চট্টগ্রামে দলীয় কলহের কথা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, চট্টগ্রাম একসময় ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুর্জয়-দুর্ভেদ্য ঘাঁটি। সেই চট্টগ্রাম এখন শেখ হাসিনার দুর্জয় ঘাঁটি। এ ঘাঁটিতে যে ফাটল ধরেছে, তা ঠিক করে আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। তিনি বলেন, ‘মৌসুমি অতিথি পাখিদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই। মৌসুমি পাখিদের দুঃসময়ে পাওয়া যাবে না। দল ভারী করার জন্য যে পকেট কমিটি করবে, তাদের প্রয়োজন নেই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জীবন যাপন করছেন জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিশ্বে তিনজন সেরা সৎ রাষ্ট্রনায়কের একজন শেখ হাসিনা। আজকের বিশ্বে চারজন পরিশ্রমীর একজন আমাদের প্রধানমন্ত্রী। বিশ্বে ১০ প্রভাবশালীর একজন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে গত ৪৪ বছরে সবচেয়ে সাহসী নেতা, সৎ রাজনৈতিক নেতা, দক্ষ প্রশাসক, সবচেয়ে সফল কূটনীতিক এবং পঁচাত্তর-পরবর্তী জননন্দিত, জনপ্রিয় নেতার নাম শেখ হাসিনা। বাংলাদেশে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জীবন যাপন করা রাষ্ট্রনায়ক ও রাজনীতিকের নাম শেখ হাসিনা। আল্লাহকে ছাড়া তিনি কাউকে ভয় করেন না।’

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, খালেদা জিয়ার জামিন চাইতে গিয়ে বিএনপির আইনজীবীরা ছয় বিচারপতির বেঞ্চে যেভাবে হাঙ্গামা করেছেন, দেশের ইতিহাসে কখনো এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। জামিন শুনানি এক সপ্তাহ পেছানোতে তাঁরা এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। খালেদা জিয়ার জামিন হলে তাঁরা কী ঘটাবেন, তা অনুমেয়। তিনি বলেন, এটি তাঁরা প্রথমবার করেছেন তা নয়, এর আগে তাঁরা প্রধান বিচারপতির দরজায় লাথিও মেরেছিলেন।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও রাউজানের সংসদ সদস্য এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী। সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালামের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুল মতিন খসরু, দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপদপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী।

চট্টগ্রাম উত্তর আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি : সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী একাধিক হওয়ায় নিজেদের মধ্যে সমঝোতার পরামর্শ দেন কেন্দ্রীয় নেতারা। কিন্তু সমঝোতা না হওয়ায় ভোটাভুটির মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু হয়। সন্ধ্যায় ভোটের ঘোষণা করেন ওবায়দুল কাদের। এতে ২২৩ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন এম এ সালাম। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী পান ১২৯ ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে শেখ আতাউর রহমান ১৯৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী গিয়াস উদ্দিন পান ১৫৪ ভোট।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা