kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

রোহিঙ্গা সংকট

সমাধানের চেষ্টা চালানোর আশ্বাস গুতেরেসের

মুজিববর্ষের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ঢাকায় আমন্ত্রণ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সমাধানের চেষ্টা চালানোর আশ্বাস গুতেরেসের

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় সম্ভাব্য সব ধরনের চেষ্টা চালানোর আশ্বাস পুনর্ব্যক্ত করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। গতকাল শনিবার রাতে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে জাতিসংঘে বাংলাদেশের নতুন স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমার সঙ্গে বৈঠকে তিনি রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে ওই আশ্বাস দেন। স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা আগামী বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের মহাসচিবকে আমন্ত্রণ জানান।

এর আগে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা পরিচয়পত্র পেশ করেন জাতিসংঘ মহাসচিবের কাছে। তিনি নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে মাসুদ বিন মোমেনের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন জানায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের সদস্য পদ লাভ করে। রাবাব ফাতিমা হচ্ছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের পঞ্চদশ স্থায়ী প্রতিনিধি।

পরিচয়পত্র পেশকালে স্থায়ী প্রতিনিধি জাতিসংঘ মহাসচিবের কাছে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন। ওই সময় জাতিসংঘের মহাসচিব বাংলাদেশকে জাতিসংঘের বন্ধু হিসেবে উল্লেখ করেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

জাতিসংঘের মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশ জাতিসংঘের মর্যাদাপূর্ণ একটি সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে বৈশ্বিক পরিমণ্ডলে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা জাতিসংঘ এবং এর মহাসচিবের পদক্ষেপ ও প্রচেষ্টাগুলোর প্রতি বাংলাদেশের অব্যাহত প্রতিশ্রুতি ও সমর্থনের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন।

জাতিসংঘের মহাসচিব স্পেনের মাদিদ্রে সদ্য সমাপ্ত জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত কপ-২৫ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর সাক্ষাতের কথা উল্লেখ করেন। ওই সময় তিনি জলবায়ু পরিবর্তন রোধ করার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অবদান এবং বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের পেশাদারি ও অব্যাহত সুনামের কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

ঢাকায় ২০২০ সালের ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য জাতিসংঘের মহাসচিবকে আমন্ত্রণ জানান স্থায়ী প্রতিনিধি। রাবাব ফাতিমা বলেন, জন্মশতবার্ষিকীর এই অনুষ্ঠান যথাযোগ্য মর্যাদায় বৈশ্বিকভাবে উদ্যাপন করা হবে।

জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেসকোর উদ্যোগে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান উদ্যাপনের বিষয়টি উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সঙ্গেও জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি উদ্যাপনের পরিকল্পনা নিয়েছে। স্থায়ী প্রতিনিধি এ ক্ষেত্রে মহাসচিবের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা