kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৫ রবিউস সানি          

চসিক নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা

হচ্ছে না চট্টগ্রাম মহানগর আ. লীগের সম্মেলন

► তৃণমূল ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন কেন্দ্র করে দলাদলির আশঙ্কা
► নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে চসিক নির্বাচনে
► জাতীয় সম্মেলন ও চসিক নির্বাচনের পর হবে মহানগর সম্মেলন

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



হচ্ছে না চট্টগ্রাম মহানগর আ. লীগের সম্মেলন

আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের আগে সাংগঠনিক জেলা চট্টগ্রাম উত্তর ও চট্টগ্রাম দক্ষিণের সম্মেলন হবে। তবে জাতীয় সম্মেলনের আগে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন আর হচ্ছে না। শুধু তা-ই নয়, মহানগরের আওতাধীন সাংগঠনিক ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানার দীর্ঘদিনের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোরও সম্মেলন হবে না, তা অবশেষে নিশ্চিত হয়েছে। দলে আলোচনা রয়েছে, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের আগেও হবে না মহানগরের সম্মেলন। নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কাসহ নানা কারণে সম্মেলনগুলো হবে পরে।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রের নির্দেশনায় একাধিকবার তৃণমূল সম্মেলন করার উদ্যোগ নিয়েছিল। ২০ ও ২১ ডিসেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠেয় জাতীয় সম্মেলনের আগে সারা দেশে তৃণমূল সম্মেলন শেষ করে সাংগঠনিক জেলা ও নগর কমিটির সম্মেলন করার কথা ছিল। গত ২৭ অক্টোবর কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রতিনিধিসভায়ও তৃণমূল এবং নগর-জেলা কমিটির সম্মেলন শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। সভায় নগর সম্মেলন সামনে রেখে গত ১১ নভেম্বর একটি বর্ধিত সভা করার কথা থাকলেও তা হয়নি।

সর্বশেষ গত বুধবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন  ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রাম সফরকালে মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন জাতীয় সম্মেলনের আগে হচ্ছে না, তা নিশ্চিত হয়। ওবায়দুল কাদের বিষয়টি চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে জানান। এ ছাড়া এ ব্যাপারে কাদের ও চট্টগ্রামের নেতাদের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত) ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীমের সঙ্গে আলাপ হয়েছে বলে দলীয় নেতারা জানান।

জানতে চাইলে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কেন্দ্র থেকে চট্টগ্রাম নগর সম্মেলন হবে এ রকম তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি। তবে সম্মেলনের প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছিল। কেন্দ্র থেকে যখনই সম্মেলন করতে বলা হবে তখনই হবে। বুধবার আমাদের সাধারণ সম্পাদক মহোদয়ের সঙ্গে আলাপ হয়েছে। তিনি বলেছেন, সম্মেলন পরে করলে তো হবে। মনে হচ্ছে আপাতত চট্টগ্রাম নগর সম্মেলন হবে না।’

আ জ ম নাছির উদ্দীন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বুধবার চট্টগ্রামে অবস্থানকালে কাদের ভাই (ওবায়দুল কাদের) আমাকে বলেছেন জাতীয় সম্মেলনের আগে নগর সম্মেলন হবে না। আমরা আগেও কেন্দ্রের নির্দেশনায় তৃণমূলের সম্মেলন করার উদ্যোগ নিয়েছি। আবার কেন্দ্রের নির্দেশনায় সে সম্মেলন স্থগিত করেছি। সম্মেলন করার জন্য আমাদের প্রস্তুতি আছে, কেন্দ্র যখন বলবে তখন আমরা সম্মেলন করতে পারব।’

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ বলেন, ‘জাতীয় সম্মেলনের আগে এখানে সব ইউনিট সম্মেলন হবে না তা কাদের ভাই আমাদের নেতাদের মৌখিকভাবে জানিয়েছেন। এত কম সময়ে নগরের সাংগঠনিক ১২৯টি ইউনিট, ৪৩টি ওয়ার্ড ও ১৫টি থানা কমিটির সম্মেলন শেষ করে নগর সম্মেলন অসম্ভব ছিল।’

দলীয় নেতারা জানান, সামনে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এখনো চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা না হলেও এই নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক মহলে নানা আলোচনা শুরু হয়েছে। ঢাকার দুটি সিটি নির্বাচনের আগে-পরে চসিক নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতে পারে। আগামী মার্চের মাঝামাঝি অথবা শেষ দিকে চসিক নির্বাচন হতে পারে। নির্বাচনের আগে তৃণমূলসহ নগর কমিটির সম্মেলন হলে দলাদলির আশঙ্কা রয়েছে। এ নিয়ে নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের দক্ষিণ জেলার সম্মেলন ৮ ডিসেম্বর। শুক্রবার-শনিবারের মধ্যে হল ঠিক করা হবে। তবে পাল্টাপাল্টি সম্মেলন আয়োজনের কারণে বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের (বৃহস্পতিবার) সম্মেলন স্থগিত করা হয়।’

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ৭ ডিসেম্বর হওয়ার কথা জানিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ পালিত বলেন, ‘আমাদের তৃণমূল কমিটিগুলোর সম্মেলন চলছে। চার উপজেলা সম্মেলন শেষে জেলা কমিটির সম্মেলন আয়োজনে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।’

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা