kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে এবার অবৈধ সম্পদের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে এবার অবৈধ সম্পদের মামলা

ক্যাসিনো কাণ্ডের মূল হোতা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী এনামুল হক আরমানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার ১ নম্বর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে পৃথক দুটি মামলা করে দুদক। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা ও উপপরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের তথ্য-প্রমাণের অনুসন্ধান প্রতিবেদন কমিশনে দাখিল করা হলে সেটি যাচাই-বাছাই শেষে কমিশন মামলার অনুমোদন দেয়। পরে অনুসন্ধান কর্মকর্তারা বাদী হয়ে পৃথক মামলা দুটি করেন।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে মামলায় দুই কোটি ৯৪ লাখ ৮০ হাজার ৮৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে। দুদকের উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে সম্রাটের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। অন্যদিকে যুবলীগের ঢাকা দক্ষিণের বহিষ্কৃত সহসভাপতি এনামুল হক আরমানের বিরুদ্ধে মামলায় দুই কোটি পাঁচ লাখ ৪০ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে। আরমানের বিরুদ্ধে দুদকের উপপরিচালক মো. সালাহউদ্দিন বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

গত ১৫ অক্টোবর ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে অস্ত্র ও মাদক আইনের দুই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ

দিন করে ১০ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। একই দিন সম্রাটের ঘনিষ্ঠ সহযোগী এনামুল হক আরমানকে মাদক আইনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত।

এর আগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় র‌্যাবের অভিযানে অবৈধ ক্যাসিনো চলার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর আত্মগোপনে চলে যান যুবলীগের প্রভাবশালী নেতা সম্রাট। গত ৭ অক্টোবর কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে সম্রাট ও তাঁর সহযোগী এনামুল হক আরমানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

এরপর ঢাকার রমনা থানায় মাদক নিয়ন্ত্রণ ও অস্ত্র আইনে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এর মধ্যে মাদক আইনের মামলায় সম্রাট ও আরমান এবং অস্ত্র মামলায় সম্রাটকে আসামি করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা