kalerkantho

বুধবার । ২৯ জানুয়ারি ২০২০। ১৫ মাঘ ১৪২৬। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

সবিশেষ

আত্মহত্যাচেষ্টা ঠেকাচ্ছে দূর নিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আত্মহত্যাচেষ্টা ঠেকাচ্ছে দূর নিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তি

চীনের ২১ বছর বয়সী শিক্ষার্থী লি ফ্যান দেশটির টুইটার-সদৃশ প্ল্যাটফর্ম উইবোতে বিশদ মেসেজ পোস্ট করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। সেটা ছিল ভ্যালেনটাইনস ডের পরদিন। তিনি লেখেন, ‘আমি আর পারছি না, আমি সব ছেড়ে দিচ্ছি।’ এর কিছুক্ষণ পরই তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

লি ফ্যান ঋণগ্রস্ত ছিলেন। তা ছাড়া মায়ের সঙ্গে চলছিল বিবাদ। ভুগছিলেন চরম বিষণ্নতায়।

লি ফ্যানের বিশ্ববিদ্যালয় নানজিং থেকে প্রায় আট হাজার কিলোমিটার দূরত্বে আমস্টারডামের একটি কম্পিউটারে চলমান এক প্রগ্রামে শনাক্ত করা হয় চীনের এই শিক্ষার্থীর পোস্টটি। ওই কম্পিউটার প্রগ্রামটি মেসেজটিকে বিশেষভাবে চিহ্নিত করে চীনের বিভিন্ন এলাকায় থাকা স্বেচ্ছাসেবকদের নজরে আনে, যাতে তারা দরকারি ব্যবস্থা নিতে পারে।

যখন তারা এত দূর থেকে লিকে জাগিয়ে তুলতে সক্ষম হলো না, তখন স্থানীয় পুলিশের কাছে নিজেদের উদ্বেগের কথা জানায় এবং এরপর তারা এসে তাঁকে বাঁচায়। শুনতে নিশ্চয়ই এটা খুব বিস্ময়কর বা অসাধারণ শোনাচ্ছে; কিন্তু ট্রি হোল রেসকিউ টিমের সদস্যদের আরো অনেক সাফল্যের কাহিনির মধ্যে এটি একটি মাত্র।

এই উদ্যোগের প্রধান হচ্ছেন  হুয়াং ঝিশেং, যিনি ফ্রি ইউনিভার্সিটি আমস্টারডামের একজন শীর্ষ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) গবেষক। গত ১৮ মাসে চীনজুড়ে ৬০০ স্বেচ্ছাসেবক তাঁর এই প্রগ্রাম ব্যবহার করেছেন; যাঁরা বলছেন প্রায় ৭০০ মানুষকে তাঁরা বাঁচিয়েছেন।

হুয়াং বলেন, ‘এক সেকেন্ড যদি আপনি ইতস্তত করেন, অনেক প্রাণ শেষ হয়ে যাবে। প্রতি সপ্তাহে গড়ে ১০ জনকে আমরা প্রাণে বাঁচাতে সক্ষম।’

কিভাবে এ প্রযুক্তি কাজ করে, তা ব্যাখ্যা করছিলেন হুয়াং। তাঁর তথ্যানুযায়ী, জাভা-বেজড এই প্রগ্রামটি উইবোতে কিছু ‘ট্রি হোলস’ মনিটর করে এবং সেখানে পোস্ট করা কিছু বার্তা বিশ্লেষণ করে থাকে। ‘ট্রি হোল’ হচ্ছে ইন্টারনেটে যেসব জায়গায় লোকজন অন্যদের পড়ার জন্য গোপনে পোস্ট করে, তার একটি চীনা নাম। এ প্রগ্রামের মাধ্যমে এ ধরনের কোনো পোস্ট শনাক্ত করা হলে, স্বয়ংক্রিয়ভাবে তাকে ১ থেকে ১০-এর মধ্যে র?্যাংক দেওয়া হয়। র?্যাংকে নাইন বা ৯ হলে বুঝতে হবে, খুব শিগগিরই একটি আত্মহত্যার চেষ্টা চালানো হবে। টেন বা ১০ নম্বর র?্যাংকিং মানে হলো ইতিমধ্যেই প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। এ ধরনের ঘটনার ক্ষেত্রে স্বেচ্ছাসেবকরা সরাসরি পুলিশকে খবর দেন, সেই সঙ্গে ওই ব্যক্তির পরিবার, আত্মীয়স্বজন বা বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। সূত্র : বিবিসি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা