kalerkantho

সোমবার । ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১১ রবিউস সানি ১৪৪১     

তদন্তে অগ্রগতি না থাকায় হতাশা হাইকোর্টের

‘তদন্ত কি অনন্তকাল ধরে চলবে?’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে




তদন্তে অগ্রগতি না থাকায় হতাশা হাইকোর্টের

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও তাঁর স্ত্রী মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্তে কোনো অগ্রগতি না থাকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, দীর্ঘ সাত বছরেও মামলার তদন্ত শেষ হলো না। কবে শেষ হবে? তদন্ত কি অনন্তকাল ধরে চলবে?

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ মন্তব্য করেন। আদালত এ কথা বলার আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের খন্দকার শফিকুল আলমের বক্তব্য শোনেন। পাশাপাশি রাষ্ট্রপক্ষও এ মামলায় গ্রেপ্তার তানভীর রহমানের আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন। এ অবস্থায় আদালত আগামী ১৪ নভেম্বর পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সরওয়ার হোসেন বাপ্পী। তানভীরের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ।

নিজের ক্ষেত্রে মামলা বাতিল চেয়ে তানভীর রহমানের করা এক আবেদনের ওপর শুনানি শেষে গত ২০ অক্টোবর এক আদেশে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করেন। মামলার সিডিসহ (যাবতীয় নথি) তাঁকে ৬ নভেম্বর হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু ওই দিন আদালত না বসায় শুনানি হয়নি। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল শুনানি হয়। শুনানির শুরুতে আদালত তদন্ত কর্মকর্তার কাছে তদন্তের অগ্রগতি জানতে চান। জবাবে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, কিছু আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে চারটি নমুনার ডিএনএ টেস্ট করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে দুটি নমুনার প্রতিবেদন এসেছে। অপর দুটি নমুনা পরীক্ষার জন্য এফবিআইয়ে পাঠানো হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত মামলার কোনো অগ্রগতি নেই। এখনো কোনো ক্লু খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

এ সময় আদালত তাঁর কাছে জানতে চান, কী কী আলামত পেয়েছেন? জবাবে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ‘কয়েকটি ছোরা, বঁটি, দা পেয়েছি।’  

এ সময় অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ আদালতকে বলেন, এ মামলায় এখন পর্যন্ত সাতজন তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন হয়েছে; কিন্তু মামলার কোনো অগ্রগতি নেই।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী আদালতকে বলেন, প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এক মাস সময় বেঁধে দিতে পারেন।

আদালত বলেন, সাত বছরেও মামলার তদন্ত শেষ হলো না। কবে তদন্ত শেষ হবে? এটা (তদন্ত) কি অনন্তকাল ধরে চলবে? এরপর আদালত তানভীর রহমানের বিষয়ে আগামী ১৪ নভেম্বর আদেশের জন্য দিন ধার্য করেন।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি নিজ বাসায় খুন হন সাগর-রুনি। এ ঘটনায় রুনির ভাই নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে শেরেবাংলানগর থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্তের দায়িত্ব পড়ে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওপর। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব)। এরপর ওই বছরের ১ অক্টোবর সাগর-রুনির ‘কথিত’ পারিবারিক বন্ধু ও স্কলাসটিকা স্কুলের ডেপুটি ম্যানেজার তানভীর রহমানকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয় এবং ওই বছরের ১০ অক্টোবর তাঁকে সাত দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। হাইকোর্ট থেকে ২০১৪ সালের ২ ডিসেম্বর তানভীর রহমানকে জামিন দেন। এরই মধ্যে আট বছর পার হয়েছে; কিন্তু মামলার তদন্ত সম্পন্ন হয়নি। আগামী ১৪ নভেম্বর নিম্ন আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। এরই মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৬৮ বার সময় নিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা। আগামী ১৪ নভেম্বর ঢাকার সিএমএম আদালতে মামলার প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য রয়েছে।

এ অবস্থায় মামলা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন তানভীর রহমান। এরই মধ্যে এই মামলা কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা