kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফিটনেসবিহীন গাড়িতে জ্বালানি নয়

তদারকি করতে আইজিপিকে নির্দেশ হাইকোর্টের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ফিটনেসবিহীন গাড়িতে জ্বালানি নয়

ঢাকাসহ সারা দেশে ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়িতে তেল ও গ্যাসসহ সব ধরনের জ্বালানি সরবরাহ না করতে পেট্রল পাম্প ও সিএনজি গ্যাস স্টেশনগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী দুই মাসের জন্য এই আদেশ দেওয়া হয়েছে। তবে ফিটনেস নবায়ন করলেই জ্বালানি নিতে পারবে। বিষয়টি তদারকি করতে পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল বুধবার এ আদেশ দেন। আদালত আগামী ১০ জানুয়ারি পরবর্তী আদেশের দিন ধার্য করেছেন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ও পুলিশের পক্ষ থেকে দাখিল করা প্রতিবেদনের ওপর শুনানি শেষে আদালত এ আদেশ দেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না। বিআরটিএর পক্ষে ছিলেন মঈন ফিরোজী ও রাফিউল ইসলাম।

এর আগে গত ২৪ জুন হাইকোর্ট এক আদেশে ঢাকাসহ সারা দেশে নিবন্ধনের পর ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়ি ও লাইসেন্স নিয়ে তা নবায়ন না করা চালকের বিস্তারিত তথ্য এক মাসের মধ্যে দাখিল করতে বিআরটিএকে নির্দেশ দেন। ফিটনেস নবায়ন না করা যান ও লাইসেন্স নবায়ন না করা চালকের ক্ষেত্রে বিআরটিএ কী পদক্ষেপ নিয়েছে, তাও এ সময়ের মধ্যে জানানোর নির্দেশ দিয়ে ২৩ জুলাই আদেশের জন্য দিন রাখেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৩ জুলাই বিএরটিএ একটি প্রতিবেদন দাখিল করে। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঢাকাসহ সারা দেশে নিবন্ধনের পর ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়ির সংখ্যা চার লাখ ৭৯ হাজার ৩২০।

এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে দুই লাখ ৬১ হাজার ১১৩, চট্টগ্রাম বিভাগে এক লাখ ১৯ হাজার ৫৮৮, রাজশাহী বিভাগে ২৬ হাজার ২৪০, রংপুর বিভাগে ছয় হাজার ৫৬৮, খুলনা বিভাগে ১৫ হাজার ৬৬৮, সিলেট বিভাগে ৪৪ হাজার ৮০৫ এবং বরিশাল বিভাগে পাঁচ হাজার ৩৩৮টি গাড়ি ফিটনেসবিহীন রয়েছে।

ওই দিন এক আদেশে ফিটনেস নবায়ন না করা এসব গাড়ির ফিটনেস নবায়ন করতে মালিকদের দুই মাস সময় বেঁধে দেন আদালত। সেই সঙ্গে ১ আগস্ট থেকে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিআরটিএর কাছে গিয়ে এসব গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষা করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশনা বাস্তবায়নের অগ্রগতি জানিয়ে বিআরটিএ চেয়ারম্যান ও পুলিশের মহাপরিদর্শককে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। একই সঙ্গে আদেশের জন্য ২৩ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়।

এই আদেশের ভিত্তিতে বিআরটিএর পক্ষ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কতগুলো গাড়ি ফিটনেস নবায়ন করেছে তার একটি প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। এ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঢাকাসহ সারা দেশে গত দুই মাসে ৮৯ হাজার ২৬৯টি গাড়ি ফিটনেস নবায়ন করেছে। ফলে এখনো তিন লাখ ৯০ হাজার ৫১টি গাড়ির ফিটনেস নবায়ন করা হয়নি।

বিআরটিএর পাশাপাশি পুলিশের পক্ষ থেকে ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে অভিযানের তথ্য দাখিল করা হয়। দেশের বিভিন্ন জেলায় পরিচালিত অভিযানের বিষয়ে আলাদা প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। এসব প্রতিবেদনে কতগুলো গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে এবং জরিমানা আদায় করা হয়েছে তা উল্লেখ করা হয়েছে।

ফিটনেসবিহীন গাড়ি নিয়ে গত ২৩ মার্চ একটি ইংরেজি দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। হাইকোর্ট গত ২৭ মার্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এক আদেশে সারা দেশে ফিটনেসবিহীন ও নিবন্ধনহীন যানবাহন এবং লাইসেন্সহীন চালকের তথ্য জানাতে বিআরটিএ চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। আদালত অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশনার পাশাপাশি রুল জারি করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল নতুন করে আদেশ দিলেন আদালত।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা