kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সবিশেষ

জঙ্গলে মিলল প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জঙ্গলে মিলল প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষ

ঘন জঙ্গলের মাঝে যে প্রাচীন মানবসভ্যতার চিহ্ন আছে, তার অনুমান অনেক আগে থেকেই ছিল ইতিহাসবিদদের কাছে। এত দিনে কম্বোডিয়ার জঙ্গলে ঘেরা সেই প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষের খোঁজ পেলেন ইতিহাসবিদরা।

মহেন্দ্র পর্বত। মহেন্দ্র অর্থাৎ দেবরাজ ইন্দ্রের পর্বত। নগরের নামকরণ করা হয়েছিল তাঁর নামেই। কম্বোডিয়ার জঙ্গলে মহেন্দ্র পর্বতের অস্তিত্ব নিয়ে ইতিহাসবিদদের মধ্যে মতবিরোধও তৈরি হয়ে গিয়েছিল। কারণ ইতিহাসে মহেন্দ্র পর্বতের কথা লেখা থাকলেও নগরের খোঁজ পাওয়া যায়নি তখনো। এই প্রথম তার খোঁজ মিলল।

২০১৩ সালে প্রথম এর অস্তিত্বের প্রমাণ পান ইতিহাসবিদরা। জঙ্গলের মধ্যে খোদাই করা কিছু পাথর দেখতে পেয়েছিলেন তাঁরা। ইতিহাসবিদদের দাবি, এই নগর খমের সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিস্তীর্ণ এলাকা ছিল এই সাম্রাজ্যের অধীন। বিশাল সম্পত্তি এবং ক্ষমতার অধিকারী ছিল এই সাম্রাজ্য।

খমের সাম্রাজ্যের ধ্বংসের পর ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত এই অঞ্চল খমের রুজ নেতাদের দখলে ছিল। কমিউনিস্ট খমের রুজ নেতারা সে সময় জঙ্গলের বিভিন্ন স্থানে ল্যান্ডমাইন বিছিয়ে রেখেছিলেন। সে কারণে ২০১৩ সালে তার খোঁজ পেলেও বা নগরের অবস্থান সম্বন্ধে অনুমান করলেও হেঁটে জঙ্গলের ভেতর নগরের খোঁজ চালাতে পারেননি ইতিহাসবিদরা। তার ওপর জঙ্গল খুব ঘনও ছিল।

সম্প্রতি হেলিকপ্টারে করে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে জঙ্গলের লেজার স্ক্যান করেন ইতিহাসবিদরা। তাতেই নগরের খোঁজ মেলে। জানা গেছে, সিয়েম রিপের ৪৮ কিলোমিটার উত্তরে ফেনম কুলেন পাহাড়ের মাঝে অবস্থিত এই নগর।

প্রাথমিক গবেষণা করে ইতিহাসবিদরা জেনেছেন, এই নগর খুব বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। অন্যান্য প্রাচীন সভ্যতার তুলনায় এর স্থায়িত্ব অনেকটাই কম ছিল। নগরের চারদিক পাহাড়ে ঘেরা। শত্রু আক্রমণ থেকে রেহাই মিললেও এমন পরিবেশে বসবাস করাটা ছিল অত্যন্ত কষ্টকর। সে কারণেই খুব বেশি দিন এই নগর স্থায়ী হয়নি বলে ধারণা ইতিহাসবিদদের। এমন দুরূহ জায়গায়, পাহাড়ের মাঝে খমের সাম্রাজ্য কেন নগর গড়ে তুলেছিল, তা জানার চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁরা। পাশাপাশি খোঁজ শুরু হয়েছে খমের সাম্রাজ্যের সেই বিশাল সম্পদের। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা