kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে রুশ অধ্যাপক নাওমকিন

রাশিয়ার জনগণের কাছে শেখ হাসিনা গুরুত্বপূর্ণ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রাশিয়ার জনগণের কাছে শেখ হাসিনা গুরুত্বপূর্ণ

রাশিয়ার জনগণ ও সরকারের কাছে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন রুশ বিজ্ঞান একাডেমির ইনস্টিটিউট অব ওরিয়েন্টাল স্টাডিজের বৈজ্ঞানিক পরিচালক অধ্যাপক ভিতালি নাওমকিন। গতকাল রবিবার দুপুরে ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী মিলনায়তনে ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকরা রুশ অধ্যাপকের কাছে শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর কথোপকথন নিয়ে বই লেখার প্রেক্ষাপট জানতে চাইলে তিনি ওই তথ্য জানান।

অধ্যাপক ভিতালি নাওমকিন বলেন, তাঁদের প্রকল্পটিই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রপ্রধান, সরকারপ্রধানদের সম্পর্কে লেখালেখির বিষয়ে। এরই মধ্যে তাঁরা লেবাননের প্রেসিডেন্ট, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লিখেছেন। ভারতের নেতাকে নিয়ে লেখার বিষয়েও আলোচনা চলছে। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে লেখাও ছিল রুশ প্রকল্পের অংশ। বাংলাদেশ বিশ্বের মূল ক্রীড়নকদের কেউ নয়। তবু বাংলাদেশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে এই অঞ্চলে।’

রুশ অধ্যাপক নাওমকিন বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে রাশিয়ার পুরনো সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিবেচনা করলে এ দেশের নেতৃত্ব, অগ্রযাত্রা সম্পর্কে জানা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করেছি, শেখ হাসিনার সঙ্গে আমাদের আলোচনা রাশিয়ার নেতৃত্ব, রাশিয়ার জনগণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তারা আমাদের অভিন্ন ঐতিহ্য, সহযোগিতা সম্পর্কে জানতে চায়।’

শেখ হাসিনা সম্পর্কে রুশ অধ্যাপক বলেন, ‘তিনি একজন সাহসী নারী। তাঁর পরিবারের মর্মান্তিক ইতিহাস আছে। তিনি রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতার মেয়ে। তাঁর এগিয়ে যাওয়া—আমাদের জনগণের কাছে এটি অবিশ্বাস্য বিষয়। তাঁরা জানতে চায়, এত বিপর্যয়ের পরও তিনি কিভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন, দেশকে এত সফলভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।’ তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের স্বার্থ দেখছেন। দারিদ্র্য ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করে চলেছেন। বাংলাদেশ ও রাশিয়া—দুই দেশেই উগ্রবাদের ঝুঁকি আছে।

মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেকজান্দার ইগনাতভ, বাংলাদেশ-রাশিয়া মৈত্রী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ শিকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যাপক ভিতালি নাওমকিন বলেন, ‘এ দেশেও অনেক ধরনের চ্যালেঞ্জ আছে। সব সময় বিরোধীরা বলে, সরকার এটি করছে-ওটি করছে। এটি সব দেশেই আছে। আমাদের ক্ষেত্রেও এমন হয়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা অবশ্যই শেখ হাসিনার নীতিকে সমর্থন করছি। আমাদের রাজনৈতিক সম্পর্ক চমৎকার। আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বড় ইস্যুতে আমাদের তেমন মতপার্থক্য নেই।’

পরে অন্য এক প্রশ্নের জবাবে রুশ অধ্যাপক বলেন, বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক জোরদার হওয়ার যে সম্ভাবনা আছে, তা এখনো পুরোপুরি কাজে লাগানো যায়নি। রাশিয়া বয়সে

নবীন। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ঐতিহ্য বহন করে চলছে রাশিয়া।

ঢাকা শহরকে ‘চমৎকার’ হিসেবে উল্লেখ করলেও যানজট সমস্যা দৃষ্টি এড়ায়নি অধ্যাপক ভিতালি নাওমকিনের। তবে যানজট সমস্যা মস্কোতেও আছে বলে জানান তিনি।

অধ্যাপক নাওমকিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ রুশ ভাষায় অনুবাদ করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি দীর্ঘ সাক্ষাৎকার নিয়ে তা রুশ, ইংরেজি, বাংলা ও আরবি—চার ভাষায় বই লিখেছেন। ওই বইয়ে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যু, ভারত, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক, ভূমিসংক্রান্ত বিরোধ, জলবায়ু পরিবর্তন, ফিলিস্তিন বিষয়ে শেখ হাসিনার সরকারের নীতি স্থান পেয়েছে।

এ ছাড়া রুশ একাডেমি অব সায়েন্সের ইনস্টিটিউট অব ওরিয়েন্টাল স্টাডিজের প্রধান রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট ফেলিক্স ইওরলভ রুশ ও ইংরেজি ভাষায়

‘মুজিবুর রহমান অ্যান্ড বার্থ অব বাংলাদেশ’ নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেছেন।

১৯৭৪ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন সফরকালে তাঁর দোভাষী হিসেবে সার্বক্ষণিক সঙ্গী ছিলেন অধ্যাপক ভিতালি নাওমকিন। অধ্যাপক নাওমকিন ও তাঁর সঙ্গীরা গতকাল ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাঁর হাতে ওই বই তিনটি তুলে দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা