kalerkantho

মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্তে সরকার অনড়

ওবায়দুল কাদের বললেন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহাসড়কে টোল আদায়ের সিদ্ধান্তে সরকার অনড়

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জাতীয় মহাসড়কগুলোতে টোল আদায়ের সিদ্ধান্তে সরকার অনড়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর জাতীয় মহাসড়কগুলো টোলের আওতায় আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

সচিবালয়ে গতকাল বুধবার সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশেই সড়কে টোল আছে। চার লেন, ছয় লেন, আট লেনের সড়ক হয়। আর এসব সড়ক যারা ব্যবহার করে তাদের টোল দিতে হয়। বাংলাদেশে কেন ব্যতিক্রম থাকবে?’ টোল আদায়ের যৌক্তিকতা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘বিভিন্নভাবে সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ওভারলোডের জন্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সড়ক দেবে যায়, গর্ত সৃষ্টি হয়। এগুলো তো মেরামত করার প্রয়োজন হয়।’

গত ৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুর পাশাপাশি জাতীয় মহাসড়কগুলো টোলের আওতায় আনার নির্দেশ দেন। এতে অর্থনীতির ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে কি না জানতে চাইলে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে আগে যেখানে আট ঘণ্টায় যেতেন, এখন সাড়ে তিন ঘণ্টায় যাচ্ছেন। কত সময় আপনি সাশ্রয় করতে পারছেন? কাজেই কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হবে—এমন আশঙ্কা নেই।’

মহাসড়কে টোলের হার নির্ধারণের প্রক্রিয়া চলছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মন্ত্রণালয় থেকে বিআরটিএকে সঙ্গে নিয়ে বিষয়টি রিজনেবল রাখার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নিয়ম-কানুন, কোন গাড়ির কত টাকা টোল হবে, কোন রাস্তায় কত টাকা ধার্য হবে—এ বিষয়গুলো একটা নিয়মের মধ্যে আনা হচ্ছে। এটা নিয়ে মন্ত্রণালয় কাজ করছে। সব কিছু চূড়ান্ত করার আগে অংশীজনদের সঙ্গেও সরকার বসবে।’

তবে সব মহাসড়কই টোলের আওতায় আসবে না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের চার লেনের মহাসড়কগুলোতে টোল আরোপের চিন্তা-ভাবনা করছি। এ রকম আপাতত চার থেকে পাঁচটি আছে। নতুন ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে হচ্ছে। সেটাও কিছুদিনের মধ্যে উদ্বোধন হবে। ঢাকা-এলেঙ্গা, জয়দেবপুর-এলেঙ্গা রুটের কাজও প্রায় শেষ। সেখানেও টোল আরোপ হবে। এলেঙ্গা থেকে রংপুর পর্যন্ত টেন্ডার হয়ে গেছে, সেটাও চার লেন হচ্ছে।’ নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর টোল নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান তিনি।

ভারতের জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনের (এনআরসি) বিষয়ে বিজেপির সভাপতি আসামে গিয়ে বলেছেন, তালিকায় যাদের নাম আসেনি তারা কেউই ভারতে থাকতে পারবে না। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিজেপির সভাপতি কী বলেছেন সেটা বিবেচনায় নেওয়ার আগে আমাদের ভারত কী বলছে সেটাই আমরা বিবেচনায় নেব। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর ঢাকায় এসে বলেছেন যে এ নিয়ে আমাদের উদ্বেগের কোনো কারণ নেই। আমরা সেটা ধরেই অগ্রসর হচ্ছি।’

‘ছাত্রলীগের বিষয়টি সরাসরি নেত্রী দেখছেন’ : ছাত্রলীগের কমিটি পরিবর্তন, সংশোধন বা সংযোজনের বিষয়টি সরাসরি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার এখতিয়ারে রয়েছে বলে মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কর্মকাণ্ডের বিষয়ে মত জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ছাত্রলীগের বিষয়টি নেত্রী সরাসরি নিজে দেখছেন। এর আগে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মন্তব্য করা সমীচীন হবে না।’

ছাত্রলীগের কমিটির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘নেত্রী সম্পূর্ণ দায়িত্ব নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যাচাই-বাছাই করে ছাত্রলীগের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও সেক্রেটারি নির্বাচন করেছেন। আমি নেত্রীর পক্ষ থেকে ঘোষণা দিয়েছি। এখন যদি ছাত্রলীগের এই কমিটির ব্যাপারে নতুন কোনো বিবেচনা আসে, সংযোজন বা পরিবর্তনের কোনো প্রশ্ন আসে, আমি মনে করি নেত্রী নিজেই করতে পারেন। নেত্রীর নিজে করাটাই সংগত।’

 

মন্তব্য