kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ অচল পাইলট ধর্মঘটে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



 ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ অচল পাইলট ধর্মঘটে

বেতন নিয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিরোধের জেরে ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘটে নেমেছেন যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় বৃহৎ বিমান সংস্থা ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের (বিএ) পাইলটরা। গতকাল সোমবার থেকে শুরু হওয়া এ ধর্মঘটে প্রায় সব ফ্লাইটই স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছে বিমান সংস্থাটি। নির্দিষ্ট গন্তব্যে যেতে না পেরে দুর্ভোগে পড়েছে কয়েক হাজার যাত্রী। বিএ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনস গ্রুপের (আইএজি) অঙ্গপ্রতিষ্ঠান হওয়ায় এ সংকটে গতকাল আইএজির শেয়ারের দর পড়েছে ২ শতাংশের বেশি।

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রিটিশ এয়ারলাইন পাইলটস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএএলপিএ) ডাকা এ ধর্মঘটের ফলে লন্ডনের হিথরো ও গেটউইক বিমানবন্দরে আগমনী ও বহির্গামী এক হাজার ৭০০ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে গতকাল সোমবার ও আজ মঙ্গলাবারের। বিমান সংস্থাটিতে এটিই প্রথম পাইলট ধর্মঘট।

উভয় পক্ষকে বিরোধ নিষ্পত্তির আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের একজন মুখপাত্র।

বিএর প্রধান নির্বাহী অ্যালেক্স ক্রুজ বিবিসি টিভিকে বলেন, ‘আমি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি যে কয়েক মাসের আলোচনার পরও পাইলটদের হতাশ আচরণে আমরা আজ এ অবস্থায়। এর ফলে আমাদের যাত্রীরা শাস্তি ভোগ করছে, আমাদের ব্র্যান্ড দুর্নাম ভোগ করছে এবং বাকি সহকর্মীরাও এ কর্মের ফল ভোগ করছে।’

এ ধর্মঘটে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের প্রতিদিন আনুমানিক ক্ষতি চার কোটি পাউন্ড। চার হাজার পাইলট এ ধর্মঘটে সংশ্লিষ্ট বলে জানা যায়।

বিএর দাবি, তাদের এ বেতন ন্যায্য। পাইলটদের তিন বছরের জন্য ১১.৫ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এ বেতন কার্যকর হলে সর্বোচ্চ আয়কারী পাইলটরা সব মিলিয়ে বছরে দুই লাখ পাউন্ডের বেশি পাবেন।

কিন্তু বিএএলপিএ আরো বেশি মুনাফার অংশীদার হতে চায়। বিএএলপিএর জেনারেল সেক্রেটারি ব্রিয়ান স্ট্রুটন বলেন, ‘ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ ভালো সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তাই আমরা মুনাফার কিছু শেয়ার পেতে চেয়েছিলাম, যেভাবে মন্দ সময়ে আমরা কষ্ট ভাগাভাগি করেছি।’ তিনি বলেন, ‘৯ মাস ধরে আমরা এ বিরোধ নিরসনের চেষ্টা করেছি, কিন্তু ফল হয়নি। ফলে এ অবস্থানে আসতে হয়েছে। পাইলটরা কিছুটা ছাড় দিতে রাজি হলেও বিএ অনড় মনোভাব দেখাচ্ছে।’

বিএএলপিএর একটি নতুন প্রস্তাব গত সপ্তাহে বিএ বাতিল করে দিয়েছে এতে সৎ উদ্দেশ্য ছিল না—এমন কথা বলে। প্রতিষ্ঠানটির মতে, বিএ ওই প্রস্তাবে রাজি হলে আমরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিতাম।

ক্রুজ বলেন, ‘আমরা আলোচনার প্রস্তুতি নিয়েছি। ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের প্রত্যেকেই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, যত দ্রুত সম্ভব এ বিবাদ থেকে উত্তরণ ঘটানোর। আমরা ইউনিয়নকে অনুরোধ জানিয়েছি আমাদের সঙ্গে দ্রুত বসার জন্য। আমরা এ ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছতে চাই।’ তিনি জানান, এটি বিএর মধ্যকার বিরোধ, তাই আইএজি নয়, নিজেরই এ সমস্যার সমাধান করবে।

বিমান সংস্থাটি জানায়, বিএএলপিএ থেকে আমরা বিস্তারিত তথ্য পাইনি, কোন কোন পাইলট ধর্মঘটে আছেন এবং কারা কাজে আসবেন। কিংবা কোন উড়োজাহজটি উড়তে পারবে। ফলে আমরা প্রায় শতভাগ ফ্লাইট বাতিল করতে বাধ্য হয়েছি—এর কোনো বিকল্প ছিল না।

সোম ও মঙ্গলবারের পাশাপাশি বিরোধ নিষ্পত্তি না হলে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বরও ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বিএএলপিএ। প্রথমবারের মতো কঠিন পদক্ষেপের ঘোষণা দিয়ে গত মাসে দেওয়া এক নোটিশে সেপ্টেম্বরে তিন দিনের ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে ধর্মঘটের আগে যাত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগের ধরন নিয়েও সমালোচনার মুখে পড়েছে বিএ। ব্রিটেনের নিয়ন্ত্রক সংস্থা জানিয়ে দিয়েছে, ধর্মঘটের কারণে যেসব যাত্রীর ফ্লাইট বাতিল হয়েছে তাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে কিংবা বিকল্প ফ্লাইটের ব্যবস্থা করতে হবে যাত্রীর সুবিধা অনুযায়ী। রয়টার্স, এএফপি, বিবিসি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা