kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রবের পর ছেলেকে চাপা দিল ভিক্টর পরিবহন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রবের পর ছেলেকে চাপা দিল ভিক্টর পরিবহন

ভিক্টর পরিবহনের ঘাতক বাসের ধাক্কায় তিন দিন আগে প্রাণ হারিয়েছেন সংগীত পরিচালক পারভেজ রব। এবার তাঁর কুলখানির জন্য কাঁচাবাজার করতে গিয়ে একই পরিবহনের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়েছেন তাঁরই ছেলে ইয়াসির আলভী রব (১৮)। নিহত হয়েছেন আলভীর বন্ধু মেহেদী হাসান ছোটন (১৯)।

গত শনিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে উত্তরা ধানার স্লুইসগেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বাসের চাপায় আলভীর পাঁজরের হাড় ভেঙে গেছে। বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে ডান হাতের একটি আঙুল। এ ঘটনায় ঘাতক বাস ও চালককে আটক করেছে পুলিশ।

পরিবারিক সূত্র জানায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর সকালে ভিক্টর পরিবহনের একটি বাসের ধাক্কায় পারভেজ রব নিহত হন। আর গত শনিবার সন্ধ্যায় ওই পরিবহনের লোকজন দলবল নিয়ে পারভেজ রবের বাসায় আসে বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য। কিন্তু এতে রবের পরিবার রাজি না হলে তারা উত্তেজিত হয়ে চিত্কার-চেঁচামেচি ও হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় রবের স্ত্রী রোমানা সুলতানা তুরাগ থানায় অভিযোগ দিতে যান। একই সময় পারভেজ রবের কুলখানির কাঁচাবাজার করতে তুরাগের কামারপাড়া এলাকা থেকে আব্দুল্লাহপুরের উদ্দেশে রওনা হন ছোটন ও আলভী। সেখানে একটি ভিক্টর পরিবহন দেখতে পেয়ে প্রতিবাদ করার জন্য তাঁরা উঠতে যান। এ সময় হেলপার দরজা বন্ধ করে দেয়। একই সময় ভিক্টর পরিবহনের আরেকটি বাস তাঁদের দুই বাসের মাঝে ফেলে চাপা দেয়। এতে দুজনই গুরুতর আহত হন। পথচারীরা তাঁদের উদ্ধার করে উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিলে চিকিত্সক মেহেদী হাসান ছোটনকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত মেহেদী হাসান ছোটন উত্তরার একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তুরাগ থানার দৌর এলাকায় তাঁদের বাসা। বাবার নাম ইউসুফ মিয়া।

গুরুতর আহত অবস্থায় আলভী রব উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিত্সাধীন ছিলেন। সেখান থেকে তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

আলভীর মা রোমানা সুলতানা বলেন, ‘নিহত পারভেজ রবের কুলখানি অনুষ্ঠানের জন্য আমার ছেলে ও তার বন্ধু বাজার করতে গিয়েছিল। পরে জানতে পারি তারা সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘স্বামী হারানোর শোকের মধ্যে ছেলেকেও হারাতে বসেছি। সমঝোতা করতে চাইনি বলেই ওরা আবারও হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। ওর বন্ধু মারা গেল। ছেলে বেঁচে থাকলেও সে এখন পঙ্গু। দুটি ঘটনারই দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।’

এদিকে উত্তরা পশ্চিম থানার এক কর্মকর্তা বলেন, ‘পারভেজ রবের মৃত্যুতে বিক্ষুব্ধ হয়ে শনিবার রাতে ভিক্টর পরিবহনসহ বেশ কয়েকটি বাসে ভাঙচুর চালায় নিহতের আত্মীয়স্বজন। হামলা থেকে বাঁচতে ভিক্টর পরিবহনের ওই চালক বাস নিয়ে পালাতে গিয়ে ওই দুর্ঘটনা ঘটায়।’

শনিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে ঘটনা ঘটলেও পুলিশ  খবর পায় পরে। রাত ২টার দিকে পুলিশ গিয়ে ক্রিসেন্ট হাসপাতাল থেকে মেহেদীর লাশ উদ্ধার করে গতকাল সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। ময়নাতদন্ত শেষে দুপুরে স্বজনরা লাশ নিয়ে যায়।

উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই সাদেক জানান, ভিক্টর পরিবহনের ধাক্কায় মেহেদী নিহত হওয়ার ঘটনায় ঘাতক বাসটি জব্দ করা হয়েছে। চালক রফিককে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। গতকাল দুপুরে তাঁকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর তুরাগে ভিক্টর পরিবহনের চাপায় সংগীত পরিচালক পারভেজ রব নিহত হন। এ ঘটনায় ভিক্টর ক্লাসিক পরিবহনের বাস জব্দ করা হলেও চালক পালিয়ে যান।

 

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা