kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

খাদ্য অধিদপ্তরে বদলি-পদায়ন নীতিমালা জারি

এক স্থানে দুই বছরের বেশি দায়িত্বে নয়

নিজ জেলায় পদায়নে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক স্থানে দুই বছরের বেশি দায়িত্বে নয়

কর্মকর্তার নিজ জেলায় পদায়ন নয় এবং একই কর্মস্থলে দুই বছরের বেশি দায়িত্বে না রাখার মতো কয়েকটি বিধান সংযুক্ত করে খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলি/পদায়ন নীতিমালা জারি করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। গতকাল বুধবার খাদ্যসচিব সাহাবুদ্দিন আহমদ স্বাক্ষরিত নীতিমালাটি প্রকাশ করা হয়েছে।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, নিজ জেলা ও উপজেলায় পদায়ন বা বদলি হতে পারবেন না খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকরা নিজ বিভাগে এবং জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বা সমমানের পদ, নবম গ্রেডের ক্যাডার-নন-ক্যাডার পদের কর্মকর্তারা নিজ জেলায় বদলি বা পদায়ন পাবেন না। একইভাবে সিএসডির ম্যানেজার ও এলএসডির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারাও নিজ জেলায় বদলি হতে পারবেন না। এমনকি দশম থেকে ১৬তম গ্রেডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজ উপজেলায় বদলি হতে পারবেন না। তবে নবম গ্রেডভুক্ত পদে কোনো কর্মকর্তা ৫৮ বছর বয়সে নিজ উপজেলা ছাড়া নিজ জেলায় বদলি হতে পারবেন।

জারি করা নীতিমালা অনুযায়ী খাদ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক/সাইলো অধিক্ষক ও সমমানের কর্মকর্তাসহ ক্যাডার কর্মকর্তাদের বদলি করবে খাদ্য মন্ত্রণালয়। জেলা পর্যায়ের নন-ক্যাডার কর্মকর্তা, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক/সমমানের নবম গ্রেডভুক্ত নন-ক্যাডার সকল কর্মকর্তা, ‘এ’ ও ‘বি’ গ্রেডভুক্ত এলএসডির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং সিএসডির ব্যবস্থাপক এবং ১০ থেকে ২০তম গ্রেডের সব কর্মচারীকে আন্ত বিভাগীয় বদলির ক্ষমতা খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের হাতে রাখা হয়েছে। খাদ্য পরিদর্শক ও সমমানের কর্মকর্তাদের এবং ‘সি’ গ্রেডের এলএসডির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের বদলি করবেন নিজ নিজ অধিক্ষেত্রের আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক। আর জেলার অভ্যন্তরে ১১তম থেকে ২০তম গ্রেডের কর্মচারীদের বদলির ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের হাতে।

একই কর্মস্থলে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে একাধিকবার বদলি, পদায়ন বা সংযুক্তি দেওয়া যাবে না। একবার এলএসডি বা সিএসডির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করলে কোনো কর্মকর্তাকে আবার ওই পদে পদায়ন করতে হলে কমপক্ষে দুই বছর ভিন্ন প্রকৃতির কাজে নিয়োজিত থাকতে হবে। বদলির আদেশ জারি হওয়ার পর পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলের দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে। এটি লঙ্ঘন করলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানা গেছে, চলতি বছরের শুরুতে নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হলে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান নওগাঁর সাধন চন্দ্র মজুমদার। দায়িত্ব নিয়েই দীর্ঘদিনের বদলি-পদায়ন বাণিজ্য বন্ধে নীতিমালা প্রণয়নের ঘোষণা দেন তিনি। নীতিমালা প্রণয়ন করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন। নতুন নীতিমালা কার্যকর হওয়ার আগে খাদ্য অধিদপ্তরের সব ধরনের বদলি-পদায়ন স্থগিত রাখার নির্দেশ দেন তিনি। কিন্তু কার্যকর হয়নি মন্ত্রীর নির্দেশনা। ‘প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে’ অজুহাতে এরই মধ্যে অধিকাংশ সিএসডি ও এলএসডির ব্যবস্থাপক ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পদে বদলি-পদায়ন সম্পন্ন করেছে। এর সঙ্গে খাদ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের একটি অসাধু চক্র জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা