kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সব চেষ্টা ব্যর্থ করে চলে গেলেন ফারুক

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সব চেষ্টা ব্যর্থ করে চলে গেলেন ফারুক

গতকাল নীলফামারীর সৈয়দপুরে বাইপাস সড়কে ট্রাকের ধাক্কায় আহত ট্রলি শ্রমিক ফারুককে বাঁচানোর শেষ চেষ্টাও ব্যর্থ হয়ে যায়। প্রচুর রক্তক্ষরণে অস্ত্রোপচারের কিছুক্ষণ পরই তিনি মারা যান। ছবি : কালের কণ্ঠ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে ফারুক হোসেন (৪০) নামের এক ট্রলি শ্রমিক ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন। উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের কামারপুকুর আবাসনের বাসিন্দা এই যুবক গতকাল মঙ্গলবার নীলফামারী-সৈয়দপুর বাইপাস সড়কে বেপরোয়া গতির একটি ট্রাকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন। শরীর থেকে তাঁর বাঁ হাতের কনুই পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এতে প্রচুর রক্তক্ষরণে প্রাণ হারান তিনি। ট্রাকচালক আক্কাস আলীকে আটক করা হয়েছে। তিনি পাবনার ঈশ্বরদী  উপজেলার মিরকামারী গ্রামের মৃত আশরাফুল আলীর ছেলে।

জানা গেছে, প্রতিদিনের মতো গতকাল সকালে বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশ্যে বের হন ফারুক। তিনি সৈয়দপুর-নীলফামারী বাইপাস সড়কের নিয়ামতপুর এলাকায় ইউনিক অটো রাইসমিলের সামনে ট্রলির কাছেই দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় নীলফামারীগামী দ্রুতগামী একটি ট্রাক (চুয়াডাঙ্গা-ট-১১-০৬৫৩) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাঁকে ধাক্কা দিলে বাঁ হাত কনুই পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ সময় তিনি ট্রাক ও ট্রলির মাঝে আটকা পড়েন। স্থানীয়রা তাঁকে  উদ্ধার করে এক শ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। সেখান থেকে রংপুরে নেওয়ার পথেই তাঁর মৃত্যু হয়।

জানা গেছে, নিহত ফারুক কামারপুকুর ইউনিয়নের ফকিরপাড়ার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে। স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়েসন্তান নিয়ে তাঁর পরিবার। কয়েক বছর আগে কামারপুকুর আবাসনে একটি বাড়ি বরাদ্দ পান তিনি। সেই থেকে পরিবার নিয়ে তিনি এখানে বসবাস করে আসছিলেন।

এদিকে গতকাল ফারুকের লাশ তাঁর শ্বশুরবাড়ি আনা হলে স্বজনদের আহাজারিতে বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম সদস্যকে হারিয়ে পরিবারটি দিশাহারা।

কামারপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম লোকমান জানান, প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে লাশ দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সৈয়দপুর থানার ওসি শাহজাহান পাশা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা