kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাহামা তছনছের পর যুক্তরাষ্ট্রের পথে ডোরিয়ান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাহামা তছনছের পর যুক্তরাষ্ট্রের পথে ডোরিয়ান

ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার গতির ঝোড়ো হাওয়া আর ২৩ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস নিয়ে বাহামা দ্বীপপুঞ্জে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় (হারিকেন) ডোরিয়ান। হতাহতের কোনো খবর না এলেও ধ্বংস হয়ে গেছে দ্বীপপুঞ্জের প্রায় ১৩ হাজার ঘরবাড়ি। ৫ নম্বর ক্যাটাগরির ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী মঙ্গলবার রাতে আঘাত হানার কথা রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলে।

রেকর্ড সংরক্ষণ শুরুর পর থেকে বাহামা দ্বীপপুঞ্জে আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড়ের মধ্যে ডোরিয়ানকে সবচেয়ে শক্তিশালী বলা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্র—এনএইচসি জানায়, কেন্দ্র থেকে ৭৫ কিলোমিটার বিস্তৃত হয়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে ডোরিয়ান। রবিবার বিকেল ৪টার দিকে (স্থানীয় সময়) গ্র্যান্ড বাহামার দিকে অগ্রসর হচ্ছিল ডোরিয়ান। এর আগে আবাকো দ্বীপপুঞ্জে ভারি বৃষ্টিপাত ঘটায় ঘূর্ণিঝড়টি। গ্র্যান্ড বাহামা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের ‘ওয়েস্ট পাম’ সৈকতের দূরত্ব ১০০ কিলোমিটার। শেষ খবর অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড়টি ঘণ্টায় দুই কিলোমিটার গতিতে ফ্লোরিডার দিকে এগোচ্ছিল। এনএইচসির তথ্য অনুযায়ী, সোমবার রাতের দিকে (স্থানীয় সময়) ঘূর্ণিঝড়টি ফ্লোরিডায় আঘাত হানতে পারে। এনএইচসি সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, রাতের বেলায় বাহামা দ্বীপপুঞ্জের বাসিন্দাদের ভোগান্তি আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা অনেক ভিডিওতে দেখা গেছে, বাতাসের গতির কারণে বাহামার হাজার হাজার ঘরের চাল উড়ে গেছে। পানির স্রোতে ভেসে গেছে শত শত গাড়ি। তলিয়ে গেছে আবাকোর অনেক এলাকা। বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বিদ্যুত্ সংযোগ; সড়ক যোগাযোগও একরকম বন্ধ। বাহামিয়ান সংবাদপত্র ‘ট্রিবিউন ২৪২’-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক ভিডিওতে দেখা যায়, অনেক বাড়ির চাল পর্যন্ত পানি উঠেছে। পানিতে তলিয়ে গেছে গ্র্যান্ড বাহামার বিমানবন্দরও। বাহামা দ্বীপপুঞ্জের প্রধানমন্ত্রী হুবার্ট মিনিস বলেছেন, ‘ডোরিয়ান প্রাণঘাতী ও দানবীয় একটি ঝড়। এটি আমাদের এক চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দিয়েছে।’ দুর্গতদের আশ্রয় দিতে সেখানকার সরকার ১৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলেছে। আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে অনেক গির্জা, স্কুল ও সরকারি ভবন। এদিকে সতর্কতা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, উত্তর ও দক্ষিণ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে ফ্লোরিডায় মোতায়েন করা হয়েছে ন্যাশনাল গার্ডের দুই হাজার সদস্য। প্রস্তুত রাখা হয়েছে আরো দুই হাজার সদস্যকে। এনএইচসি জানায়, ডোরিয়ান ক্রমে দুর্বল হচ্ছে। কিন্তু ফ্লোরিডায় আঘাত হানার সময়ও যথেষ্ট বিপজ্জনক থাকবে এটি। স্থানীয় সময় অনুযায়ী সোমবার রাত থেকে বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়টি যুক্তরাষ্ট্রের ওপর দিয়ে বয়ে যাবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা