kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

ডিসির সঙ্গে নারী অফিস সহকারীর আপত্তিকর ভিডিও, তোলপাড়

জামালপুর প্রতিনিধি   

২৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডিসির সঙ্গে নারী অফিস সহকারীর আপত্তিকর ভিডিও, তোলপাড়

নিজ অফিস কক্ষে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর ও এক নারীর অবৈধ মেলামেশার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে সব মহলে বেশ তোলপাড় ও ধিক্কারের ঝড় উঠেছে। তবে ভিডিওটি বানানো বলে দাবি করেছেন জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর।

চার মিনিট ৫৭ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে যে কক্ষটি দেখা যাচ্ছে, সেটি জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের অফিস কক্ষের পাশের ছোট একটি কক্ষ, যা একটি ছোট খাটসহ পরিপাটি করে সাজানো। আর ভিডিওটি যারা দেখেছে, তারা দাবি করেছে পুরুষ ব্যক্তিটি জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরই এবং তাঁর সঙ্গের নারীটি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমেই সম্প্রতি নিয়োগ পাওয়া একই অফিসের এমএলএসএস বা পিয়ন।

জেলা পর্যায়ের সর্বোচ্চ পদধারী সরকারি কর্মকর্তার নিজ অফিসেই পরনারীর সঙ্গে অবৈধ মেলামেশার এ ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘খন্দকার সোহেল আহমেদ’ নামের একটি আইডি থেকে আপলোড হয় গত ১৫ আগস্ট বিকেলের দিকে। ভিডিওটি গত বৃহস্পতিবার

বিকেল থেকে ব্যাপক হারে নজরে আসতে থাকে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল তোলপাড় এবং ধিক্কারের ঝড় ওঠে। অন্যদিকে গতকাল শুক্রবার ভোর থেকে রহস্যজনক কারণে ওই আইডির ওয়াল থেকে ভিডিও লিংকটি সরিয়ে নেওয়ায় সন্দেহ আরো দানা বেঁধে উঠেছে।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর জামালপুরে যোগদান করেছেন ২০১৭ সালের ২৭ মে। যোগদানের কিছুদিন পর থেকেই তিনি তাঁর অফিস কক্ষের পাশে ছোট্ট একটি কক্ষ নির্ধারণ করেন ধূমপান এবং ব্যক্তিগত ও সরকারি গোপনীয় বৈঠকের জন্য। সম্প্রতি ওই কক্ষে একটি খাটও বসানো হয়। তবে ওই কক্ষে একাধিক নারীর যাতায়াতকে কেন্দ্র করে গোটা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে নানা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল বেশ কয়েক দিন ধরে। শেষ পর্যন্ত আপত্তিকর ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর অনেকেই বলছে, গুঞ্জন শেষ পর্যন্ত বাস্তবে রূপ নিয়েছে।

এদিকে গতকাল দুপুর ২টার দিকে আপত্তিকর ভিডিওটি প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভিডিওটি আমি দেখেছি। ওটি আসলে বানানো একটি ভিডিও। খন্দকার সোহেল আহমেদ নামের ফেসবুকের একটি ফেক আইডি থেকে ওই ভিডিওটি আপলোড করে আমার কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে আসছিল। আজ ভোর থেকে ভিডিওটি ওই আইডি থেকে সরিয়ে ফেলেছে।’ এর বেশি কিছু তিনি বলতে রাজি হননি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা