kalerkantho

শনিবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৪ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

লাকসামে উত্ত্যক্ততার প্রতিবাদ

কিশোরীর মা-বাবাকে কুপিয়ে জখম

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কিশোরীর মা-বাবাকে কুপিয়ে জখম

কুমিল্লার লাকসামে স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় বখাটের দল তার মা-বাবাকে কুপিয়ে জখম করেছে। এ ছাড়া পিটিয়ে আহত করেছে ওই স্কুলছাত্রীকেও। ঘটনা জানিয়ে থানায় অভিযোগ করায় আরো ক্ষিপ্ত হয়ে বখাটেরা ভেঙে দিয়েছে তাদের বাড়িঘর। এ ঘটনায় আহতরা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গেলে সেখানেও বখাটেদের হুমকি-ধমকি চলতে থাকে। একপর্যায়ে ভয়ে হাসপাতাল ছেড়ে যেতে বাধ্য হয় তারা। এখনো বখাটেদের অত্যাচারের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে মা-বাবাসহ ওই স্কুলছাত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে গত রবিবার উপজেলার মুদাফরগঞ্জ (উত্তর) ইউনিয়নের চিকুনিয়া গ্রামে।

লাকসাম থানায় দায়ের করা অভিযোগ ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গ্রামের আবদুর রবের ছেলে দিনমজুর আমির হোসেনের মেয়ে স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। একই গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে পিকআপচালক বখাটে রিপন হোসেন (২২) ও তার সহযোগী একই বাড়ির মৃত মেন্ডা মিয়ার ছেলে মিলন (২৬) প্রতিনিয়ত ওই ছাত্রীকে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার বিকেলে স্কুল থেকে ফেরার পথে বখাটেরা ওই ছাত্রীকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা চালায়। মেয়েটি পালিয়ে পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নিলে সেখানেও বখাটেরা আক্রমণ চালায়। প্রাণভয়ে ওই ছাত্রী পালিয়ে নিজ বাড়িতে এসে ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। বখাটেরা এসে তাদের বাড়িতেও হামলা চালায়।

ঘটনা জানতে পেরে ছাত্রীর বাবা বাড়ি এসে প্রতিবাদ করলে বখাটে রিপন, মিলনসহ কয়েকজন ওই ছাত্রীর মা-বাবাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। তাদের মারধর থেকে ওই ছাত্রীও বাদ পড়েনি।

আমির হোসেনের অভিযোগ, হামলাকারীরা তাঁর পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী এবং স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনায় তিনি প্রতিকার চেয়ে লাকসাম থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে ফেরার পথে হামলাকারীরা ফের তাঁর ওপর আক্রমণ চালিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে এবং তাঁর বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর অভিযোগ, কিছুদিন আগে সে স্কুলে যাওয়ার পথে বখাটে রিপন ও তার সহযোগী মিলন জোরপূর্বক তাকে গাড়িতে তুলে কুমিল্লায় নিয়ে যায়। একপর্যায়ে তারা তাকে অন্যত্র বিক্রির চেষ্টা চালায়। বিষয়টি টের পেয়ে ওই রাতেই কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে আসে সে। লাকসাম থানার ওসি নিজাম উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা আমির হোসেন একটি মামলা করেছেন। তবে কেউ এখনো গ্রেপ্তার হয়নি। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত মিলন হোসেন ও রিপনের বক্তব্য জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের নাগাল পাওয়া যায়নি।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা