kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

বগুড়া-৬ উপনির্বাচন

মহাজোটে ২ প্রার্থী বিএনপির সঙ্গে নেই শরিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহাজোটে ২ প্রার্থী বিএনপির সঙ্গে নেই শরিকরা

বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেওয়ায় ক্ষুব্ধ মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টি। পর পর দুইবার আসনটি মহাজোটকে ছাড় দেওয়া হলেও এবার এই আসনে ক্ষমতাসীন দলটি জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস এম টি জামান নিকেতাকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে। এতে হতাশা প্রকাশ করে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা বলছে, মহাজোট থেকে একক প্রার্থী না থাকলে আসনটি হাতছাড়া হতে পারে। তবে জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, বগুড়ায় এখন আওয়ামী লীগের অবস্থা অনেক ভালো। সরকারের নানা উন্নয়নে মানুষ তাদের সিদ্ধান্ত পাল্টেছে।

অন্যদিকে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ। তিনি জোট থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও জোটের অন্য শরিকদের সেভাবে প্রচারণায় দেখা যাচ্ছে না।

গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া সদর আসনে মহাজোট থেকে জাতীয় পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ওমরকে প্রার্থী করা হয়। বিএনপি জোট অংশ না নেওয়ায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। একাদশ সংসদ নির্বাচনেও মহাজোট থেকে নুরুল ইসলাম ওমর প্রার্থী হন। কিন্তু তিনি ২০ দলীয় জোট প্রার্থী বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে বিপুল ভোটে হেরে যান।

মির্জা ফখরুল শপথ না নেওয়ায় আগামী ২৪ জুন এই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে মহাজোট থেকে একক প্রার্থী দেওয়া হয়নি। আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি জেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক এস এম টি জামান নিকেতাকে এবং জাতীয় পার্টি থেকে নুরুল ইসলাম ওমরকে প্রার্থী করা হয়। প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর থেকেই দুই প্রার্থী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

প্রার্থিতা প্রসঙ্গে এস এম টি জামান নিকেতা জানান, দল থেকে তাঁকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভোট মহাজোটগতভাবে না এককভাবে করা হবে সে বিষয়ে কেন্দ্র থেকে কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী নূরুল ইসলাম ওমর জানান, মহাজোট থেকে কে ভোট করবেন তা নির্ধারণ হয়নি। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে তিনি মাঠে নেমেছেন। জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুস সালাম বাবু জানান, মহাজোট থেকে একক প্রার্থী না থাকায় তাঁরা হতাশ, বিব্রত। দুজন প্রার্থী থাকায় ভোটাররা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে। এতে ভোট ভাগাভাগি হয়ে যাবে এবং এ সুযোগে ২০ দলীয় জোট প্রার্থী ভালো ফল করবেন।

নির্বাচনে অন্য প্রার্থীরা হলেন বাংলাদেশ কংগ্রেসের মনসুর রহমান, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের রফিকুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মিনহাজ ও সৈয়দ কবির আহম্মেদ।

এদিকে উপনির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থীর সঙ্গে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল জামায়াতসহ অন্যান্য সংগঠনের নেতাদের দেখা যাচ্ছে না। এমনকি জামায়াতের ভোটাররা আগামী ২৪ জুন ভোট দেওয়া থেকে বিরত থাকবে বলে দলের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। নাম প্রকাশ না করে একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

 

মন্তব্য