kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

পাখির ধাক্কায় জরুরি অবতরণ বিমানের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাখির ধাক্কায় জরুরি অবতরণ বিমানের

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজারগামী একটি উড়োজাহাজ জরুরি অবতরণ করেছে। উড্ডয়নের পর পাখির সঙ্গে ধাক্কা লাগায় উড়োজাহাজটি জরুরি অবতরণ করে। তবে এতে কোনো ক্ষতি না হওয়ায় বিমানটি কিছুক্ষণ পর ফের রওনা দেয়।

বাংলাদেশ বিমানের ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ মডেলের উড়োজাহাজটি গতকাল সোমবার সকাল ৯টা ২৫ মিনিটের দিকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরই তাতে পাখির ধাক্কা লাগে। পাইলট বাড়তি সতর্কতা হিসেবে গন্তব্যে না গিয়ে ফিরে এসে জরুরি অবতরণ করান। ওই সময় দুর্ঘটনা থেকে প্রাণ রক্ষা করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয় বিমানবন্দরে। ফায়ার সার্ভিস প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি রানওয়ে খালি করে রাখা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শাহজালাল বিমানবন্দরে রানওয়ের চারপাশ থেকে পাখি সরাতে একসময় উচ্চ শব্দ সৃষ্টিকারী যন্ত্র ব্যবহার করা হলেও এখন তা কার্যকর নেই। বর্তমানে শুধু বার্ড শ্যুটাররা (পাখি শিকারি) বন্দুক দিয়ে পাখি তাড়ানোর কাজ করে। তবে কম জনবল থাকায় এ কার্যক্রমও ব্যাহত হচ্ছে। যদিও বিভিন্ন দেশে বিমানবন্দরে লেজার লাইট, আলট্রা সাউন্ডের মাধ্যমে পাখি তাড়ানো হয়।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন আব্দুল্লাহ আল ফারুক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পাখির উৎপাত থেকে বিমান চলাচল

নিরাপদ রাখতে প্রয়োজন মতো প্রায়ই বার্ড শ্যুট করা হয়। বিমানের উড়োজাহাজটি উড্ডয়নের কিছু সময় পর পাখি আঘাত করে। যতদূর মনে হচ্ছে, এটা বিমানবন্দরে নয়, অন্য কোথাও হয়েছে।’

বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘টেকঅফের পর ককপিট ক্রু লক্ষ্য করেন বার্ড হিট হয়েছে। পরে পাইলট গন্তব্যে না গিয়ে ফের শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিরাপদে অবতরণ করেন।’ তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ বিমানের ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ মডেলের বিজি ১৪৩৩ ফ্লাইটটি উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরই জরুরি অবতরণের অনুমতি চায়। পরে এয়ার ট্রাফিক কনট্রোলরুম অনুমতি দিলে অবতরণ করে।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন আব্দুল্লাহ আল ফারুক বলেন, ‘বিমানটি নিরাপদে অবতরণ করেছে। যাত্রীদের কোনো ক্ষতি হয়নি।’

জানা যায়, বিমানটি অবতরণ করার পর প্রায় ২০ মিনিট বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ ওঠানামা বন্ধ ছিল। সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে বিমানবন্দরের রানওয়ে প্লেন ওঠানামার জন্য খুলে দেওয়া হয়।

উড়োজাহাজটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কিছুক্ষণ পর আবার গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। এতে যাত্রীদের কারও কোনো সমস্যা হয়নি বলে জানিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষ।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বিমানের ইঞ্জিনে পাখি ঢুকলে বেশি ক্ষতি ও দুর্ঘটনার ঝুঁকি থাকে। ইঞ্জিনের ফ্যান-ব্লেড ও স্পিনার ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ইঞ্জিন সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। পাখির আঘাতের ঝুঁকি থাকলে পাইলটদেরও মানসিক চাপে থাকতে হয়। আর শাহজালাল বিমানবন্দরে সেই চাপ বেশি। কারণ এর পাশেই কয়েকটি জলাশয় থাকায় সেখানে মাছ ও কীটপতঙ্গ খেতে ঝাঁকে ঝাঁকে হাজির হয় পাখিরা। আর ওই সময় কোনো উড়োজাহাজ ওঠানামা করলে পাখির ধাক্কা লাগার আশঙ্কা থাকে।

 

মন্তব্য