kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার

এক অঙ্ক সুদহার কার্যকর করা ব্যাংকই পাবে সরকারি আমানত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক অঙ্ক সুদহার কার্যকর করা ব্যাংকই পাবে সরকারি আমানত

সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্ত্বশাসিত ও আধাস্বায়ত্তশাসিত সংস্থার অর্থ আমানত হিসেবে রাখার ক্ষেত্রে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো ৬ শতাংশের বেশি সুদ দিতে পারবে না। এসব আমানত ৬ শতাংশ বা এর কম সুদে রাখা যাবে। যেসব ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্ক কার্যকর করেছে, তারাই সরকারি আমানত রাখার এ সুবিধা পাবে। এ ছাড়া ১৪টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান সরকারি সংস্থার আমানত পাবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার আলোকে গতকাল বৃহস্পতিবার এসংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ঋণের সুদের হার এক অঙ্কে নামিয়ে আনার জন্যই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২০ মে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সরকারি সংস্থাগুলো তাদের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) ও অন্যান্য খাতের নিজস্ব অর্থ ব্যাংকগুলোতে ৬ শতাংশের বেশি সুদে আমানত হিসাবে রাখতে পারবে না। ফলে এখন থেকে ব্যাংক ও সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো এসব অর্থ আমানত রাখার ক্ষেত্রে কোনো পক্ষই ৬ শতাংশের বেশি সুদ দিতে পারবে না। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের প্রজ্ঞাপন দ্বারা সরকারি সংস্থাগুলোকে তাদের আমানত সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ সুদে ব্যাংকে রাখতে বাধ্য করা হয়েছে। আবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোকেও বলা হয়েছে, সরকারি প্রতিষ্ঠানের আমানত রাখতে ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেওয়া যাবে না।

ব্যাংকিং খাতে বর্তমানে ১০ লাখ ৮২ হাজার কোটি টাকার আমানত রয়েছে। এর মধ্যে বেসরকারি খাতের আমানত হচ্ছে আট লাখ ৭৪ হাজার কোটি টাকা। আর সরকারি খাতের মোট আমানত হচ্ছে দুই লাখ আট হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট আমানতের মধ্যে সরকারি আমানতের পরিমাণ খুবই কম। ফলে এই আমানত ঋণের সুদের হারে খুব বেশি প্রভাবিত করতে পারবে না। এ কারণে সরকারি খাতের আমানতপ্রবাহ বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর অংশ হিসেবে সরকারের বৈদেশিক তহবিল টাকায় রূপান্তর করে ব্যাংকে আমানত হিসেবে রাখা হবে। অন্য আরো যেসব তহবিল থাকে সবই ব্যাংকে রাখা হবে। এতে টাকার প্রবাহ ব্যাংকমুখী হবে।

সার্কুলারে বলা হয়, সরকারি সংস্থাগুলোর বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) তহবিলের আওতায় সরকার থেকে পাওয়া অর্থ এবং সরকারি, আধাসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বায়ত্তশাসিত ও আধাস্বায়ত্তশাসিত সংস্থার নিজস্ব তহবিলের অর্থ সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ সুদে ব্যাংকে আমানত রাখতে হবে। এসব আমানত বাণিজ্যিক ব্যাংক বা নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে আমানত হিসেবে রাখা যাবে। এর মধ্যে যেসব ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান গত বছরের ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশের মধ্যে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে শুধু ওই সব প্রতিষ্ঠানই এই আমানত পাবে। যারা ঋণের সুদের হার ওই সময়ের মধ্যে ৯ শতাংশের মধ্যে নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে তারা এই আমানত পাবে না।

আরেকটি সার্কুলারে বলা হয়েছে, সরকারি সংস্থাগুলোর ৫০ শতাংশ আমানত বেসরকারি ব্যাংকে রাখার বিধান আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্যও প্রযোজ্য। এ জন্য ১৪টি যোগ্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান নির্ধারণ করে দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সরকারি সংস্থাগুলো তাদের আমানতের ৫০ শতাংশ এসব আর্থিক প্রতিষ্ঠানে রাখতে পারবে। এই প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং, আইডিএলসি ফাইন্যান্স, ইসলামিক ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, বে-লিজিং, ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট ফাইন্যান্স, আইপিডিসি ফাইন্যান্স, লংকাবাংলা, মাইডাস ফাইন্যান্স, ন্যাশনাল হাউজিং, ফিনিক্স ফাইন্যান্স, প্রিমিয়ার লিজিং, ইউনাইটেড ফাইন্যান্স, উত্তরা ফাইন্যান্স এবং মেরিডিয়ান ফাইন্যান্স।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা