kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৫ রবিউস সানি          

নদীতে ফুল ভাসিয়ে পাহাড়ে বৈসাবি শুরু

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নদীতে ফুল ভাসিয়ে পাহাড়ে বৈসাবি শুরু

রাঙামাটিতে গতকাল নদীতে ফুল ভাসিয়ে বৈসাবির মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এতে শিশুরাও অংশ নেয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

তখনো কাটেনি রাতের আঁধার। ভোরের আবছা আলো চোখ মেলছে। ধীরলয়ে সারি সারি চাকমা শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণী ফুলের ডালা হাতে দল বেঁধে হাঁটছে কাপ্তাই হ্রদের দিকে। গতকাল শুক্রবার ভোরে রাঙামাটির রাজবন বিহারের পূর্ব ঘাটে কাপ্তাইয়ের জলে গঙ্গা দেবীর উদ্দেশে জগতের মঙ্গল কামনায় ফুল ভাসিয়ে বৈসাবির মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু করে পাহাড়ি জনগোষ্ঠী। চাকমারা ফুল বিজুর দিনে পুরনো বছরের সব দুঃখ-গ্লানি মুছে নতুন বছরকে স্বাগত জানায়। ফুল ভাসানোর পরপরই সবাই নিজেদের ঘরে ফিরে যায়। বড়দের প্রণাম করে আশীর্বাদ গ্রহণ করে। শেষে বয়স্কদের স্নান করানো হয়। এ ছাড়া পাড়ার বয়স্কদের শরীরে পানি ঢেলে তাদের আশীর্বাদ কামনা করে তারা। দেওয়া হয় নতুন পোশাক।

খাগড়াছড়ির ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর বৈসু উৎসবে চেঙ্গী নদী এবং আশপাশের জলের উৎসগুলোতে জনসমাগম বাড়তে থাকে। জেলা সদরের নারানখাইয়া, খবংপুড়িয়া, স্বনির্ভর এলাকা থেকে চেঙ্গী নদীতে ফুল ভাসাতে আসে হাজারো মানুষ। বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষের ভিড় জমে চেঙ্গীর পারে। কেউ একা আবার অনেকে দলবলে ছোটে নদীর ধারে। সবার হাতেই নানা রংবেরঙের ফুল। রঙিন হয়ে ওঠে চেঙ্গী নদী। শিশু থেকে বড়রা নদীর জলে গা ভিজিয়ে নিজেদের শুদ্ধ করে নেয়। নববর্ষে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী ঐতিহ্যবাহী গরয়া নৃত্যে মেতে ওঠে। গতকাল খাগড়াছড়িতে প্রথমবারের মতো ত্রিপুরা সংস্কৃতি উৎসব উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হামিদুল হক। এতে ত্রিপুরাদের বিভিন্ন কৃষ্টি-সংস্কৃতি তুলে ধরা হয়েছে। গরয়া নৃত্যেরও আয়োজন করা হয়।

বান্দরবানের মারমা জনগোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব সাংগ্রাইং আজ সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে শুরু হবে। মারমাদের জলকেলি একটি ঐতিহ্যবাহী উৎসব। একে-অন্যকে পানি ছিটিয়ে পরিশুদ্ধতা লাভ করা যায় বলে বিশ্বাস করে তারা।

বৈসাবির কয়েক দিন ধরে পাহাড়িদের ঘরে ঘরে পাঁচমিশালি তরকারি ‘পাচন বা পাজন’-এর আয়োজন করা হয়। পাহাড়ে বর্ষবিদায় আর বর্ষবরণের আগমনী বার্তা এলেই পাড়া-মহল্লায় ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলা শুরু হয়ে যায়।

এদিকে গতকাল সকালে রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যানের লেকে ফুল বিজুর মধ্য দিয়ে নববর্ষকে বরণ করে চাকমা জনগোষ্ঠী। তিন দিনের এই অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

(প্রতিবেদন তৈরিতে সহযোগিতা করেছেন রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি)

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা