kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে নন-এমপিও শিক্ষকদের আন্দোলন স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে নন-এমপিও শিক্ষকদের আন্দোলন স্থগিত

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির আশ্বাসে এক মাসের জন্য আন্দোলন স্থগিত করেছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। গতকাল রবিবার বিকেল সোয়া ৩টায় শিক্ষামন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইনকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শিক্ষকদের কর্মসূচিস্থলে উপস্থিত হন। এর পরই বাংলাদেশ নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের এক বৈঠক শেষে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা আসে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এমপিওভুক্তির বিষয়ে যেহেতু সরকারের আর্থিক সক্ষমতা জড়িত, এ জন্য ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। আমরা অনলাইনে আবেদন নিয়েছি। চারটি মাপকাঠির ভিত্তিতে আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাছাই করছি। আগামী এক থেকে দেড় মাসের মধ্যেই আমরা কাজ শেষ করতে পারব। এরপর আগামী অর্থবছরের বাজেট থেকেই আমরা এমপিওভুক্তির কাজ শুরু করতে পারব।’

দীপু মনি বলেন, ‘এমপিওভুক্তির ব্যাপারে আমরা ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। আপনারা (শিক্ষক-কর্মচারী) বাড়ি ফিরে যান। যাঁর যাঁর কর্মস্থলে যোগ দিন। আমাদের আর কয়েকটি মাস সময় দিন। আমাদের সর্বোচ্চ যা করার, তাই করব। এই প্রতিশ্রুতি আমি দিলাম।’

শিক্ষক ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহামুদুন্নবী ডলার সভা শেষে বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী আমাদের কাছে সময় চেয়েছেন এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব নিয়েছেন। তাই আমরা এক মাসের জন্য কর্মসূচি স্থগিত করছি। তবে এক মাসের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।’

এই শিক্ষক নেতা আরো বলেন, ‘আজ সোমবার সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী ও সিনিয়র সচিবের সঙ্গে আমাদের প্রতিনিধিদলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা হবে।’

গত ২০ মার্চ এমপিওভুক্তির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হন নন-এমপিও শিক্ষকরা। পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী তাঁরা ২০ ও ২১ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রার চেষ্টা করেন। কিন্তু পুলিশের বাধা পেয়ে তাঁরা রাজধানীর কদম ফোয়ারা থেকে প্রেস ক্লাব পর্যন্তু সড়কে অবস্থান নেন। পাঁচ দিন অবস্থানের পর শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে তাঁরা কর্মসূচি স্থগিত করলেন। তবে গত বছর তাঁরা একটানা ৩২ দিন অবস্থান কর্মসূচি ও অনশন পালন করেছিলেন। সেবারও তাঁরা সরকারের আশ্বাসেই বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন।

জানা যায়, দেশের পাঁচ হাজারেরও বেশি নন-এমপিও প্রতিষ্ঠানে লক্ষাধিক শিক্ষক-কর্মচারী এমপিওভুক্তির জন্য দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করছেন। সর্বশেষ ২০১০ সালে নতুন প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করেছিল সরকার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা