kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাংলাদেশি কৃষি বিজ্ঞানীর সাফল্য

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশি কৃষি বিজ্ঞানীর সাফল্য

উপকারী আন্তকোষীয় ব্যাকটেরিয়া (Bacillus siamensis YC7012) ব্যবহারের মাধ্যমে গাছের সুষম বৃদ্ধির তথ্য প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিএআরআই) বিজ্ঞানী ড. মু. তোফাজ্জল হোসেন। এ তথ্য এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক সায়েন্স সাইটেসন ইনডেক্সভুক্ত প্ল্যান্ট অ্যান্ড সয়েল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। ওই উপকারী ব্যাকটেরিয়া গাছের বৃদ্ধির জন্য দায়ী কার্যকরী হরমোনদের পাশ কাটিয়ে এককভাবে গাছের নানামুখী বৃদ্ধি ঘটিয়েছে, যা বিজ্ঞানের জন্য নতুন মৌলিক তথ্য বলে ওই জার্নালের মার্চ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে। স্প্রিনজারের নেদারল্যান্ডস থেকে প্রকাশিত জার্নালটির ওয়েবসাইট  থেকে এ তথ্য জানা যায়।

সাতটি মিউট্যান্ট (অকার্যকারী জিন যা নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যকে ব্যাহত করে) ট্রানজেনিক গাছ, জিনগত ডিএনএ, আরএনএ এবং আরটিপিসিআরের মাধ্যমে এই মৌলিক গবেষণাটি করেন গবেষক ড. হোসেন। বিশেষ করে অক্সিন, ইথাইলিন, জেসমনিক এসিড গাছের বৃদ্ধির জন্য দায়ী হরমোন, যা আগেই অন্য বিজ্ঞানীদের গবেষণায় ফুটে ওঠে। এককভাবে গাছের হরমোনদের কাছে নির্ভরশীল না হয়ে স্বাধীনভাবে ড. হোসেনের উপকারী আন্তকোষীয় ব্যাকটেরিয়াটি সরাসরি গাছের সুষম বৃদ্ধি ঘটিয়েছে, ফলে কোনো কারণে গাছের কোনো হরমোন অকার্যকর হয়ে পড়লেও ওই ব্যাকটেরিয়া

(Bacillus siamensis YC7012) মাটিতে থাকলে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হবে না বলে গবেষণায় পাওয়া গেছে।

এ গবেষণাটি ড. হোসেনের পিএইচডি গবেষণাকালে দক্ষিণ কোরিয়ায় গিয়াংসেং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্পন্ন হয়। অধ্যাপক ড. জং ইয়ং রুনের সহযোগিতায় ওই গবেষণায় পাকিস্তানের ড. আজমল খান ও বিএআরআইয়ের ড. মো. হারুন-অর-রশিদ সহায়ক বিজ্ঞানী হিসেবে ছিলেন। ওই ব্যাকটেরিয়া দিয়ে দেশীয় আবহাওয়ায় নানামুখী গবেষণা অব্যাহত রয়েছে বলে বিএআরআইয়ের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. হোসেন জানান।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা