kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চের ধাক্কায় নৌকাডুবি

মিলল পাঁচজনের লাশ এখনো নিখোঁজ ১

নিজস্ব প্রতিবেদক ও শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মিলল পাঁচজনের লাশ এখনো নিখোঁজ ১

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের পাশে নৌ দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ছয়জন নিহত হয়। গতকাল উদ্ধার করা হয় তিনজনকে। ৬ বছরের মাহির মৃতদেহও তোলা হয় নদী থেকে। ছবি : কালের কণ্ঠ

বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া নৌকার যাত্রীদের মধ্যে একজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। তাঁর নাম সাহেদা বেগম (৩২)। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৮টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাঁর লাশ উদ্ধার করা যায়নি। সংশ্লিষ্ট উদ্ধারকারী দল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে চাচাতো বোনের বিয়েতে আসার আগে পুরাতন সদরঘাটে সুরভী লঞ্চের ধাক্কায় একই পরিবারের সাতজন নিয়ে ডুবে যায় একটি নৌকা। তাদের মধ্যে একজন সাঁতরে পারে উঠতে পারলেও নিখোঁজ হয় নারী-শিশুসহ ছয়জন। তাদের মধ্যে গত শুক্রবার একজন ও গতকাল শনিবার চারজনের লাশ বুড়িগঙ্গা নদী থেকে উদ্ধার হলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছেন সাহেদা নামের এক গৃহবধূ। বাকি একজনের খোঁজে শনিবার তৃতীয় দিনের মতো নদীতে তল্লাশি চালায় ফায়ার সার্ভিস, বিআইডাব্লিউটিএ ও নৌ পুলিশ।

নৌ পুলিশের সদরঘাট থানার ওসি আবদুর রাজ্জাক বলেন, সকাল ৮টার দিকে আহসান মঞ্জিল জাদুঘর বরাবর নদী থেকে মাহি (৬) নামের একটি শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। এরপর দুপুরে দেলোয়ার (২৮) ও তাঁর ছেলে জুনায়েদ (ছয় মাস) এবং মাহির বোন মিম (৮) নামের আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

বিআইডাব্লিউটিএর ঢাকা নৌবন্দরের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন বলেন, ওই নৌকার যাত্রীরা ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত লঞ্চের পেছন দিক দিয়ে ওঠার চেষ্টা করেছিল; কিন্তু লঞ্চ তখন পেছন দিকে যাওয়ায় প্রপেলারের ঢেউয়ের ধাক্কায় ছোট নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকার মাঝি ছাড়া বাকি সবাই ডুবে গেলে সঙ্গে সঙ্গে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় শাহজালালকে।

বিয়েবাড়িতে শোকের মাতম : শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জের দক্ষিণ তারাবুনিয়া গ্রামের কামাল চোকদারের মেয়ে খাদিজা আক্তারের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার কথা ছিল স্বজনদের। অনুষ্ঠানে আসার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল বোন জামসেদা বেগম, তাঁর স্বামী দেলোয়ার হোসেন, সাত মাস বয়সী শিশুপুত্র জোনায়েদ। তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছিল চাচাতো ভাই শাহজালাল চোকদার, তাঁর স্ত্রী সাহেদা বেগম, তাদের দুই সন্তান মিম ও মাহি। গত বৃহস্পতিবার রাতে তাদের বহনকারী নৌকাটি লঞ্চের ধাক্কায় বুড়িগঙ্গা নদীতে তলিয়ে যায়। এ সময় আহত অবস্থায় শাহজালাল চোকদারকে উদ্ধার করা হলেও বাকি ছয়জন নদীতে তলিয়ে যায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা