kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সৌদি আরবের সঙ্গে দুই চুক্তি, চার সমঝোতা

৩৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রস্তাব বাংলাদেশের
বাংলাদেশের সঙ্গে নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে চায় সৌদি আরব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সৌদি আরবের সঙ্গে দুই চুক্তি, চার সমঝোতা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকাল তাঁর কার্যালয়ে বৈঠক করেন সৌদি আরবের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ক মন্ত্রী মাজিদ বিন আবদুল্লাহ আল কাসাভি এবং অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মদ বিন মাজিদ আল-তাওজরি। ছবি : পিআইডি

বিদ্যুৎ, জনশক্তিসহ কয়েকটি খাতে বিনিয়োগের জন্য সৌদি আরবের সঙ্গে দুটি চুক্তি ও চারটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে; যার মাধ্যমে দেশে বড় ধরনের বিদেশি বিনিয়োগ আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে তাঁর কার্যালয়ে সৌদি প্রতিনিধিদের সঙ্গে এসব চুক্তি ও সমঝোতায় সই করেন বাংলাদেশের বিভিন্ন কম্পানি ও সংস্থার প্রতিনিধিরা।

চুক্তি সইয়ের আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন সৌদি আরবের বাণিজ্য ও বিনিয়োগবিষয়ক মন্ত্রী মাজিদ বিন আবদুল্লাহ আল কাসাভি আর অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মদ বিন মাজিদ আল-তাওজরি।

একই দিন সকালে রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে সৌদি আরব ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে এসব বিষয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এর আগে দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, সৌদি বাদশাহ বাংলাদেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরো এগিয়ে নিতে আগ্রহী বলে দেশটির বাণিজ্য ও বিনিয়োগ মন্ত্রী মাজিদ বৈঠকে জানান।

সৌদি আরবের ৩৪ সদস্যের প্রতিনিধিদল নিয়ে গত বুধবার রাতে ঢাকায় পৌঁছেন দেশটির দুই মন্ত্রী।

এর আগে ওই দিন বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সৌদি প্রতিনিধিদলের এই সফরে অন্তত ১৬টি প্রকল্পে দেড় থেকে দুই হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ আসবে বলে তাঁরা আশা করছেন।

দুই চুক্তি : ১০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র (সোলার আইপিপি) নির্মাণে সৌদি আরবের আলফানার কম্পানির সঙ্গে চুক্তি করেছে ইলেকট্রিসিটি জেনারেশন কম্পানি অব বাংলাদেশ (ইজিসিবি)।  ইজিসিবির পক্ষে এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অরুণ কুমার সাহা এবং আলফানার পক্ষে এর সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট খালিদ বিন কাবেল আল সুলামি চুক্তিতে সই করেন।

ট্রান্সফর্মার ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম উৎপাদনে সৌদি কম্পানি ইঞ্জিনিয়ারিং ডাইমেনশনের সঙ্গে চুক্তি করেছে জেনারেল ইলেকট্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং কম্পানি লিমিটেড। জেনারেল ইলেকট্রিকের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুলতান আহমেদ ভূইয়া এবং ইঞ্জিনিয়ারিং ডাইমেনশনের পক্ষে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিন নাজিব আল হাজি চুক্তিতে সই করেন।

চার সমঝোতা স্মারক : বাংলাদেশ সরকারের জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) এবং সৌদি আরবের আল মাম ট্রেডিং এস্টেটের মধ্যে জনশক্তি রপ্তানি বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। ইউরিয়া ফরমালডিহাইড-৮৫ প্লান্ট নির্মাণে দেশটির ইউসুফ আল রাজি কনস্ট্রাকশন এস্টেটের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারকে সই করেছে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন।

‘সৌদি-বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব বায়ো-মেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে সৌদি আরবের আল আফালিক গ্রুপ (এএইচ গ্রুপ) ও বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশন (বিএসইসি) ও রিয়াদ কেবলস গ্রুপ অব কম্পানির মধ্যে তার উৎপাদনের বিষয়ে স্বাক্ষর হয়েছে আরেকটি সমঝোতা স্মারক।

বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংলাপ

বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য উন্নয়নে সৌদি আরব নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে চায় বলে জানিয়েছেন দেশটির সফরত বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ক মন্ত্রী মাজিদ বিন আবদুল্লাহ আল কাসাভি। তিনি বলেন, তাঁদের আরো আগেই বাংলাদেশে বিনিয়োগে এগিয়ে আসা উচিত ছিল। কেননা বাংলাদেশে ব্যাপক সম্ভাবনা থাকার পরও দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্যের পরিমাণ এখন দেড় শ কোটি ডলারেরও কম। তাই সামনের দিনে এ ব্যবসা বাড়াতে, সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে বিনিয়োগ বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

সৌদি আরব ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংলাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আল কাসাভি এ মন্তব্য করেন।

অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বক্তব্য দেন। মূল প্রস্তাবনা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষে সৌদি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশের বার্তাও দেওয়া হয়। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে দেশটি ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ, বিদ্যুৎ-জ্বালানি, জনশক্তিসহ বিভিন্ন খাতের অন্তত ১৬টি প্রকল্পে ৩৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য সৌদি আরবের অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মদ বিন মাজিদ আল-তাওজরিকে প্রধান করে সৌদি-বাংলাদেশ জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটি অব ইনভেস্টমেন্ট গঠনে একমত হয়েছে দুই দেশ। এ ছাড়া একটি জয়েন্ট ইকোনমিক কাউন্সিলও গঠন করা হবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা একাধিক প্ল্যানারি সেশনে অংশ নেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা