kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

এক কিলোমিটার দৌড়ে পাকড়াও ছিনতাইকারী!

দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা)   

৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এক কিলোমিটার দৌড়ে পাকড়াও ছিনতাইকারী!

সাহসী নারী

সালমা খাতুন। কর্মরত আছেন ঢাকার দোহার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে। শনিবার বিকেলে রাজধানীর হাতিরঝিলে অন্তত এক কিলোমিটার দৌড়ে পথচারীদের সহায়তায় ছিনতাইকারী পাকড়াও করেছেন তিনি। আল আমিন (২৫) নামে এক ছিনতাইকারীকে হাতিরঝিল থানায় সোপর্দ করে মামলাও করেছেন সালমা খাতুন। এই নারী কর্মকর্তার সাহসিকতার গল্প ঘুরছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও।

হাতিরঝিল থানার ওসি ফজলুল করিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তিনি (সালমা) নিজেই ধাওয়া করেছিলেন। পরে পাবলিক ছিনতাইকারী ধরতে তাঁকে সহায়তা করে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।’

পুলিশ জানায়, ছিনতাইকারী আল আমিনের বাসা নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায়। গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালীর কুয়াতলায়।

সালমা খাতুনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শনিবার বিকেলে রিকশায় করে হাতিরঝিল দিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।  সেখানে যানজটে বসে থাকার মুহূর্তে তাঁর গলায় থাকা লকেটসহ সোনার চেইনটি ছিঁড়ে নিয়ে দৌড় দেয় এক

ছিনতাইকারী। তিনি সাহস করে তাকে ধাওয়া করেছিলেন। শাড়ি পরা অবস্থায়ই ছুটতে ছুটতে অন্তত এক কিলোমিটার দৌড়ে অন্যদের সহযোগিতায় ছিনতাইকারীকে ধরে ফেলেন। উদ্ধার করেণ তাঁর চেইনটি। তবে ছিনতাইয়ের সময় লকেটসহ চেইনটি টুকরো হয়ে যাওয়ায় চেইনের পুরো অংশটি উদ্ধার করতে পারেননি তিনি। পরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সাহায্য নেন পুলিশের। ছিনতাইকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়ে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেণ সালমা খাতুন।

সালমা খাতুন বলেন, ‘নারী-পুরুষ ভেদে সাহসিকতার ভিন্ন কোনো সংজ্ঞা নেই। যেকোনো অপরাধ সংঘটনের প্রাথমিক পর্যায়ে যদি সাধারণ মানুষ পুলিশ আসার অপেক্ষায় না থেকে সাহস করে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে, তাহলে সেটিই বহু সমস্যার আগাম সমাধান দিতে পারে। একজন নারীর সাহসিকতা দেখে ১০ জন নারী এগিয়ে আসবে। তারাও প্রেরণা পাবে সাহস নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার। আমার এ কর্মকাণ্ড দেখে সেখানে থাকা আরো ১৫-২০ জন নারী এগিয়ে এসে আমাকে ধন্যবাদ দিয়েছে। আমি মনে করি, তারাও প্রেরণা পেয়েছে সাহসের সঙ্গে অপরাধ মোকাবেলা করার।’

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা