kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ওবায়দুল কাদের বললেন

সরকারের দায় আছে, ব্যবসায়ীদেরও সচেতনতা দরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সরকারের দায় আছে, ব্যবসায়ীদেরও সচেতনতা দরকার

ফাইল ছবি

ঢাকার চকবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে কোনো কিছু ঘটলে তার দায় সরকার এড়াতে পারে না।

কিন্তু যারা এই (রাসায়নিক) ব্যবসার সঙ্গে জড়িত, তাদেরও সচেতন হওয়া দরকার। কারণ  তাদের এখানে জীবিকার চেয়ে জীবনের ঝুঁকি বেশি। সেখানে সচেতনতা ও সতর্কতার একটা ব্যাপার ছিল।

অগ্নিকাণ্ডে চিকিৎসাধীনদের দেখতে গতকাল শুক্রবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিট পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

দেরি না করে পুরান ঢাকার সব রাসায়নিকের কারখানা ও গুদাম বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘যেটা হয়ে গেছে এবং যারা চলে গেছে, ক্ষয়ক্ষতি যা হয়ে গেছে সেটা তো আর ফেরত দেওয়া যাবে না। এখন ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে।’ নিমতলীর ঘটনার পর থেকেই সতর্ক হওয়ার প্রয়োজনীয়তার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চেষ্টা ছিল। কিন্তু এটা এমন একটা ঘনবসতিপূর্ণ, ঘিঞ্জি এলাকা, এখানকার কেমিক্যাল গোডাউনগুলো আবার ভেতরে ভেতরে এসে জায়গা নিয়ে ফেলেছে। এটা একটু মনিটর করলে হয়তো এড়ানো যেত।’

সড়কমন্ত্রী বলেন, ‘ভুল সংশোধন করে নতুন করে পথ চলার বিকল্প নেই। প্রধানমন্ত্রী যত দ্রুত সম্ভব রাসায়নিকের গুদাম সরানোর নির্দেশ দিয়েছেন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতেও শুরু করেছেন। আশা করি মেয়র সাহেব কালবিলম্ব না করে পদক্ষেপ নেবেন। এখানে যারা নিহত হয়েছে, তাদের পরিবারের অনেকে সামর্থ্যবান ব্যক্তি। টাকা দিয়ে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যাবে না। এর পরও মানবিক, আর্থিক সাহায্য, পুনর্বাসন—এ ব্যাপারে যা যা করণীয়, প্রধানমন্ত্রী ব্যবস্থা নিয়েছেন।’

কবে নাগাদ রাসায়নিকের গুদাম বন্ধ হতে পারে এবং কোন কোন রাসায়নিকের গুদাম বন্ধ হচ্ছে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এখানে কেমিক্যালের যে গোডাউনগুলো আছে, অবিলম্বে সরিয়ে নিতে হবে। এখানে রাখা যাবে না। এ ব্যাপারে কোনো গাফিলতি আরো বড় ক্ষতি ডেকে আনবে। দিনক্ষণ এভাবে বলা যাবে না। প্রধানমন্ত্রী যেখানে নির্দেশ দিয়েছেন, সেখানে দিনক্ষণের কী আছে?’

এক প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকার প্রাথমিক পর্যায়ে কিছু গোডাউন সরিয়েও নিয়েছে। পরে গোপনে এসে অনেকে জেঁকে বসেছে। এটার ক্লোজ মনিটরিংটা হলে হয়তো এমনটা হতো না।’

সরকারের দায়িত্বহীনতা নিয়ে বিএনপির প্রশ্ন তোলা প্রসঙ্গে সড়কমন্ত্রী বলেন, ‘এই দুর্ঘটনা নিয়ে প্রত্যেকেরই দায়-দায়িত্ব আছে। নাগরিক হিসেবে সবাইকে পজিটিভ কিছু করতে বলব। রাজনৈতিক দল হিসেবে, এতগুলো লোকের প্রাণহানি, মানুষের দুঃখ আর দুর্ঘটনাকে পুঁজি করে আমাদের কারো রাজনীতি করা উচিত না। এ বিষয়টি আর যা-ই করুন, রাজনীতিতে নিয়ে আসবেন না।’

ঢামেক হাসপাতালে দর্শনার্থীদের ভিড় না জমানোর পরামর্শ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখানে দর্শনার্থী বাড়তে থাকলে বার্ন ইউনিটে ভর্তি রোগীর জন্য খারাপ হবে। ডাক্তাররা বারবার বলছেন আপনজনকে বাঁচাতে হলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চলতে হবে। দর্শনার্থী বাড়ানো যাবে না।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা