kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

সবিশেষ

ক্যান্সারের রহস্য হাঙর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্যান্সারের রহস্য হাঙর

গ্রেট হোয়াইট শার্ক নামে পরিচিত সাদা রঙের হাঙরের বৃহদাকার প্রজাতিটি হয়তো ক্যান্সার ও বয়সজনিত রোগ নিরাময়ের গোপন রহস্য ধারণ করে রেখেছে; এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

গ্রেট হোয়াইট শার্কের ডিএনএর প্রথম ম্যাপিং প্রকাশিত হওয়ার পর দেখা যাচ্ছে, সেখানে জিনের ডিএনএ গঠনের স্থায়ী পরিবর্তন বা ‘মিউটেশন’-এর যে বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পেয়েছে, তা প্রাণীকে ক্যান্সার ও বয়সজনিত রোগ থেকে রক্ষা করে।

বিজ্ঞানীরা বিষয়টিতে আশাবাদী হয়ে উঠেছেন। আরো গবেষণার মাধ্যমে এ থেকে প্রাপ্ত ফল মানুষের ক্ষেত্রে বয়সজনিত রোগ নিরাময়ে কাজে লাগানো যাবে বলে মনে করছেন তাঁরা। বড় এই সাদা হাঙর নিজে থেকেই তার নিজের ডিএনএ মেরামত করার ক্ষমতা রাখে, যেমনটি আমাদের নেই।

এই গবেষণাটি পরিচালনা করেছেন ফ্লোরিডার নোভা সাউথ ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির একদল বিজ্ঞানী ‘সেভ আওয়ার সিজ শার্ক রিসার্চ সেন্টার’ ব্যানারে।

মানুষের কিছু ‘পরিবর্তনশীল জিন’ আমাদের বয়সজনিত রোগ ও ক্যান্সারের প্রতি ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। হাঙরের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, তারা তাদের ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন প্রতিকূলতাকে হারিয়ে শীর্ষে অবস্থান করে আসছে। আর সে জন্যই নিজেরাই তারা তাদের জিনকে মেরামত করেছে এবং বিভিন্ন ক্ষতি কাটিয়ে সহনশীল হওয়ার বিকাশ ঘটেছে।

গবেষকদলের সদস্য ড. মাহমুদ শিভজি বলেন, ‘জেনোমের অস্থিতিশীলতা বা পরিবর্তনশীলতা মানুষের বহু গুরুতর রোগের জন্য দায়ী। আমরা এখন দেখতে পাচ্ছি, এসব বৃহদাকার ও দীর্ঘজীবী হাঙরের ক্ষেত্রে প্রকৃতি জেনোমের স্থিতিশীলতা বজায় রাখার সুচতুর কৌশল বিকাশ করেছে।’

প্রায় ১৬ মিলিয়ন বছর ধরে সাগরে বিচরণ করছে এই গ্রেট হোয়াইট শার্ক। এদের সবচেয়ে বড় প্রজাতিটির দৈর্ঘ্য হয় ২০ ফুট। ওজন হয় গড়ে তিন টন। হাঙরের ডিএনএ মানুষের চেয়ে অন্তত দেড় গুণ বড় হয়ে থাকে। বিজ্ঞানীরা চেষ্টা করছেন ডিএনএতে সংরক্ষিত সেই সব তথ্য বা কোডের অর্থ বের করতে, যার মাধ্যমে হাঙর তার সমস্যার সমাধান কিভাবে করছে সেই রহস্য কাজে লাগানো যাবে।

হাঙর সাধারণত গুরুতর আহত অবস্থা থেকে নিজেদের দ্রুত নিরাময় করে তুলতে পারে। সুতরাং গবেষকরা মনে করছেন, কাঙ্ক্ষিত তথ্য তাঁদের ক্ষত নিরাময় ও রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যার সমাধানও দেবে। সূত্র : বিবিসি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা