kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বিশ্ব ইজতেমা

জুমার নামাজে মুসল্লির ঢল, আজ মোনাজাত প্রথম পর্বের

টঙ্গী প্রতিনিধি   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



জুমার নামাজে মুসল্লির ঢল, আজ মোনাজাত প্রথম পর্বের

টঙ্গীর তুরাগতীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিন গতকাল জুমার নামাজে অংশ নেয় লাখো মুসল্লি। ইজতেমা ময়দানে জায়গা না পেয়ে অনেকেই রাস্তার ওপর নামাজ আদায় করে। ছবি : কালের কণ্ঠ

৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত আজ শনিবার। আগামীকাল রবিবার শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। গতকাল শুক্রবার মাওলানা যোবায়েরপন্থীদের ব্যবস্থাপনায় প্রথম পর্বের ইজতেমা শুরু হয়। তার আগে বৃহস্পতিবার বাদ আসর থেকেই মূলত ইজতেমার কার্যক্রম শুরু হয়। এতে অংশ নেন দেশ-বিদেশের উলামায়ে কেরামরা।

বিশ্ব ইজতেমার  প্রধান কর্মসূচি আমবয়ানে গতকাল শুক্রবার অংশ নেন, বাদ ফজর : মাওলানা জিয়াউল হক (পাকিস্তান), বাদ জুমা : মাওলানা শেখ মোহাম্মদ গাস্সান (সৌদি আরব), বাদ আসর : মাওলানা জোহায়েরুল হাসান (ভারত), বাদ মাগরিব : মাওলানা ইব্রাহিম দেওয়ালা (ভারত)।

গতকাল ইজতেমা ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় উপমহাদেশের অন্যতম বৃহৎ জুমার জামাত। এতে ইমামতি করেন ঢাকার কাকরাইল মসজিদের খতিব মাওলানা যোবায়ের। জুমার নামাজে শরিক হতে টঙ্গী, গাজীপুরসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকার অগণিত ধর্মপ্রাণ মানুষ ছুটে আসে ইজতেমা ময়দানে। ফজরের নামাজের পর থেকে জুমার আগ পর্যন্ত মুসল্লিদের ঢল অব্যাহত থাকে।

ইজতেমা উপলক্ষে ‘কহর দরিয়া’ পারের বিশাল চটের শামিয়ানার তল পূর্ণ হয়ে যায় বৃহস্পতিবার রাতেই। পরে খোলা আকাশের নিচে ঠাঁই নেয় অনেকে। এ অবস্থায় জুমার জামাতে শামিল হতে আসা মুসল্লিরা যে যেখানে জায়গা পেয়েছে, সেখানে দাঁড়িয়ে আদায় করেছে জুমার নামাজ।

সিলিন্ডার দুর্ঘটনা : গতকাল সকাল ১০টার দিকে ইজতেমা ময়দানে সিলিন্ডার গ্যাসের চুলার লিকেজ থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১০ থেকে ১২ জন মুসল্লি আহত হয়। ফায়ার সার্ভিস কন্ট্রোল রুমের কর্মীরা জানান, ৩৩ নম্বর খেত্তা এলাকায় রাজশাহী অঞ্চলের একটি জামাতের রান্নার সময় হঠাৎ তাদের সিলিন্ডার গ্যাসের চুলা বিস্ফোরণের পর আগুন লেগে আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে। এতে  বস্তাভর্তি কিছু কাপড়চোপড় ও অন্যান্য সামগ্রী পুড়ে যায়। এ সময় পাশের একটি খুঁটিতে বৈদ্যুতিক বাতি লাগাতে গিয়ে এক ব্যক্তি ওপর থেকে নিচে পড়ে যায়। এ দুটি দুর্ঘটনায় গুজব ছড়িয়ে পড়লে লোকজনের হুড়োহুড়িতে বেশ কয়েকজন আহত হয়।

বিশ্ব ইজতেমার তথ্যবিষয়ক কমিটির দায়িত্বশীল জিম্মাদার জহির ইবনে মুসলিম জানান, এবার দেশের সব জেলা থেকে একযোগে মুসল্লিরা ইজতেমায় যোগ দেওয়ায় স্থান সংকুলানে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে সবাই ধৈর্যের সঙ্গে খেত্তায় অবস্থান করে ইজতেমার কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছে। আখেরি মোনাজাতের পর দেশ-বিদেশে নতুন জামাত পাঠানোর কার্যক্রম শুরু হবে।

ইজতেমার বৈদেশিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কমিটির সিনিয়র সদস্য প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান জানান, অল্প সময় ও ভিসাসংক্রান্ত কারণে এবার বিদেশি মেহমানের সংখ্যা কম। এ পর্যন্ত এক হাজারের কিছু বেশি বিদেশি মেহমান ইজতেমায় অংশ নিতে পেরেছে।

গত দুই দিন বিশ্ব ইজতেমা ও আশপাশের এলাকায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইজতেমা ময়দানের প্রতিটি খেত্তায় রয়েছে সাদা পোশাকের গোয়েন্দা তৎপরতা। দু-চার গজ পরপরই রয়েছে পুলিশের অবস্থান। ইজতেমার চারপাশে উঁচু ওয়াচ টাওয়ারে র‌্যাবের সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ রয়েছে। রয়েছে কিছুক্ষণ পর পর আকাশে হেলিকপ্টারে নিরাপত্তা বাহিনীর টহল।

আন্তর্জাতিক নিবাসে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বাইরে অন্য কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। ইজতেমাস্থলে প্রবেশের প্রতিটি পথে রয়েছে র‌্যাব-পুলিশ ও ইজতেমা কর্তৃপক্ষের নিজস্ব নিরাপত্তা নজরদারি।

দুই মুসল্লির মৃত্যু : বৃহস্পতিবার রাতে বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেওয়া দুই মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। রাত সাড়ে ১২টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় সিরাজুল ইসলাম লাড়ু (৬৫) নামে এক মুসল্লির। তিনি কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার কাউদিয়া গ্রামের আফসার আলীর ছেলে।

অন্যদিকে রাত আড়াইটার দিকে শ্বাসকষ্টজনিত রোগে মৃত্যু হয় শফিকুর রহমান (৬৮) নামে আরেক ব্যক্তির। তিনি ফেনী জেলা সদরের একাডেমি গ্রামের নজির আহমেদের ছেলে। ইজতেমা ময়দানে জানাজা শেষে তাঁদের লাশ নিজ নিজ বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

আজ সকাল ১০টার পর জোহরের নামাজের আগে যেকোনো সময় আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। মোনাজাত পরিচালনা করবেন কাকরাইল মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ যোবায়ের। অন্যদিকে আজ রাত ১০টার মধ্যেই প্রথম পর্বে অংশ নেওয়া সব মুসল্লিকে ইজতেমা ময়দান ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে। আগামীকাল বাদ ফজর শুরু হবে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। এই পর্বের আয়োজক সাদপন্থী  তাবলিগ অনুসারীরা।

হেলিকপ্টারে ইজতেমায় আল্লামা শফী : এদিকে কালের কণ্ঠ’র হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, হেলিকপ্টারে করে টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমায় গিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির ও হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছাখালী থেকে হেলিকপ্টারে করে তিনি টঙ্গীর উদ্দেশে চট্টগ্রাম ছেড়ে যান। তাঁর সফরসঙ্গী হয়েছেন ছেলে হেফাজতে ইসলামের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানী।

মাওলানা আনাস মাদানী জানান, হেফাজতে ইসলামের আমির টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় জুমার নামাজে অংশ নেবেন। এ ছাড়া আজ আখেরি মোনাজাত পর্যন্ত ইজতেমা ময়দানে অবস্থান করবেন। আনাস মাদানী আরো জানান, গত দুই বছরই আহমদ শফী চট্টগ্রামে আঞ্চলিক ইজতেমায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। দাওয়াতের কাজে আলেমসমাজের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি এবং আলমি শুরার প্রতি সম্মান জানিয়ে অসুস্থ শরীর নিয়েও বিশ্ব ইজতেমায় শরিক হচ্ছেন তিনি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা