kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দুই হাত ভরে বই কেনা

নওশাদ জামিল   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দুই হাত ভরে বই কেনা

পহেলা ফাল্গুন আর বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে গ্রন্থমেলায় ছিল জনজোয়ার। ফলে অনেকের ধারণা ছিল, শুক্রবার লোকসমাগম কম হবে। দুই দিনের ঘোরাঘুরিতে ক্লান্ত অনেকে হয়তো মেলায় আসবে না। সব ধারণাকে পাশে ঠেলে গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে আবারও মানুষের ঢল নামে গ্রন্থমেলায়। এই ঢল সন্ধ্যা গড়িয়ে রাতে জনসমুদ্রে রূপ নেয়। বিপুল  দর্শনার্থী ও পাঠকে একাকার হয়ে ওঠে মেলা প্রাঙ্গণ। পাঠকরা বইও কিনেছেন দুই হাত ভরে। প্রকাশকদের মুখেও ছিল আনন্দের হাসি।

গতকাল গ্রন্থমেলার দ্বার খোলে সকাল ১১টায়। সকালটা শিশু  প্রহর থাকায় শিশু-কিশোরদের উপস্থিতি ছিল ব্যাপক। শুধু সকালবেলা নয়, দিনভরই ছিল শিশু-কিশোরদের প্রাণবন্ত সমাগম। শিশুচত্বর ছিল সোনামণিদের কলকাকলিতে আনন্দমুখর। শাহবাগ ও দোয়েল চত্বর—দুই পাশ থেকে সারিবদ্ধ বইপ্রেমীরা মেলায় প্রবেশ করে। সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ শাহবাগ থেকে দোয়েল চত্বর সড়ক মানুষের ভিড়ে থমকে দাঁড়ায়। সন্ধ্যা নাগাদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এবং বাংলা একাডেমি অংশে মানুষের এতটা ভিড় ছিল, হাঁটাচলা করা কঠিন হয়ে পড়ে।

স্টল ও প্যাভিলিয়নের বিক্রয়কর্মীরা বইপ্রেমীদের চাপে রীতিমতো হাঁপিয়ে ওঠেন। বড় প্যাভিলিয়নের পাশাপাশি ছোট স্টলেও বিক্রি হয়েছে প্রচুর বই। বিক্রয়কর্মীরা জানান, ক্রেতা-পাঠকের সমাগম যেমন ছিল বেশি, বইয়ের কাটতিও ছিল বেশি। তাত্ক্ষণিক বই বিক্রির সঠিক পরিসংখ্যান জানা না গেলেও কম-বেশি সবার হাতে দেখা গেছে নতুন বইয়ের প্যাকেট।

কথাপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী জসিম উদ্দীন বলেন, ‘শুধু বই বিক্রিটাই মূল বিষয় নয়, মানুষ যে বইয়ের কাছে ছুটে আসছে এটি ইতিবাচক। আধুনিক প্রযুক্তির এই যুগে মানুষ যে বইয়ের কাছে ছুটে আসছে, এটিকে সাধুবাদ জানাতে হয়।’

প্রচুর ক্রেতা-দর্শনার্থী-পাঠকের পাশাপাশি গতকাল মেলায় এসেছিলেন কবি-লেখকরাও। প্রথমার প্যাভিলিয়নে অটোগ্রাফ দিচ্ছিলেন কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক। আর পার্ল পাবলিকেশন্সের সামনে পাঠকদের অটোগ্রাফ দিচ্ছিলেন কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল।

গতকাল ‘লেখক বলছি’ মঞ্চে নিজেদের নতুন বই নিয়ে পাঠকের মুখোমুখি হয়েছিলেন পাঁচজন লেখক। জলতরঙ্গ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘পুরান ঢাকার জেলা লালবাগ কেল্লা’ নিয়ে কবি আসলাম সানী এবং মানুষ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘ঝুলনপূর্ণিমা থেকে নেমে এলো’ কাব্যগ্রন্থ নিয়ে কবি গোলাম কিবরিয়া পিনু, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশিত ‘বাবুদের বাজিমাত’ গ্রন্থ নিয়ে শিশুসাহিত্যিক পলাশ মাহবুব, বৈভব থেকে প্রকাশিত ‘আজিজুল একটি গোপন নামতা’ গ্রন্থটি নিয়ে কবি-গল্পকার ফারুক আহমেদ এবং বিদ্যাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘গল্প সমারোহ’ নিয়ে কথা বলেন কথাসাহিত্যিক জুলফিয়া ইসলাম।

গ্রন্থমেলার ১৫তম দিনে প্রকাশিত হয়েছে ২৭২টি নতুন বই। তার মধ্য থেকে চারটি বইয়ের তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

বঙ্গবন্ধু আজ যদি বেঁচে থাকতেন : বরেণ্য কলামিস্ট, সাংবাদিক ও সাহিত্যিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর প্রবন্ধ-নিবন্ধের বই। বইটির রচনাগুলো পাঠককে বেশ কিছু নতুন প্রশ্নের মুখোমুখি করবে। নতুন দৃষ্টি দিয়ে বাংলাদেশকে দেখতে প্রাণিত করবে। বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও বাঙালি সম্পর্কে লেখকের অনুসন্ধানী অবলোকন বইটির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রকাশক আগামী প্রকাশনী। দাম ৩০০ টাকা।

কাফকা আসবে : কথাসাহিত্যিক মঈনুল আহসান সাবেরের গল্পগ্রন্থ। বইটিতে গল্প রয়েছে ছয়টি। গল্প বলার প্রথাগত ভঙ্গিমার বাইরে গিয়ে বইটিতে লেখক হাজির হয়েছেন ভিন্ন সাজে, ভিন্ন মাত্রায়। পাঠক বইটি পড়ে নির্মল আনন্দ পাবে, চমকিত হবে। প্রকাশক দিব্যপ্রকাশ। দাম ২০০ টাকা।

নস্ট্রাডামাসের ভবিষ্যদ্বাণী ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের উত্থান : লেখক ও গবেষক গাজীউল হাসান খানের গ্রন্থ। গ্রন্থটিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্পর্কে নানা অজানা তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে। প্রকাশক দিব্যপ্রকাশ। দাম ২২৫ টাকা।

বালি-ঘড়ি উল্টে যেতে থাকে : কবি গুলতেকিন খানের কাব্যগ্রন্থ। তাঁর কবিতা বহুবর্ণিল। দৃশ্যকল্প ও ছন্দমাধুর্যে কবিতায় তিনি ফুটিয়ে তোলেন গভীর সংবেদনশীলতা। প্রকাশক তাম্রলিপি। দাম ১৩৫ টাকা।  

নতুন বই : বুলবুল সরওয়ারের ‘মমির দেশ মিশর’ (ঐতিহ্য), সঞ্জীব দ্রংয়ের ‘ঈশ্বর সাঁওতালদের ভুলে গেছে’ (সূচীপত্র), ধ্রুব এষের ‘আমার বাঘ মামাই’ (ময়ূরপঙ্খি), স্বকৃত নোমানের ‘বাঙালি মনীষীদের ছেলেবেলা’ (অনিন্দ্য প্রকাশ), জোবায়দা আক্তার চৌধুরীর ‘সে তুমি নও, তোমার ছায়া’ (পার্ল পাবলিকেশন্স)।

মেলামঞ্চের আয়োজন : গতকাল বিকেলে মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী : শ্রদ্ধাঞ্জলি’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক বেগম আকতার কামাল। আলোচনায় অংশ নেন কবি মোহাম্মদ সাদিক ও সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক সৈয়দ আকরম হোসেন।

সন্ধ্যায় কবিকণ্ঠে কবিতা পাঠ করেন কবি ইকবাল আজিজ ও হারিসুল হক।

আজকের আয়োজন : আজ শনিবার মেলা চলবে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। বিকেলে গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘চিত্রশিল্পী সৈয়দ জাহাঙ্গীর : শ্রদ্ধাঞ্জলি’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা