kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সরকারের প্রথম কূটনৈতিক ব্রিফিং

সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস বিশ্ব সম্প্রদায়ের

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস বিশ্ব সম্প্রদায়ের

উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো পূরণে বাংলাদেশকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। নতুন সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বিদেশি দূতাবাস ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর শীর্ষ প্রতিনিধিদের কাছে সরকারের লক্ষ্য তুলে ধরে সহযোগিতা চাইলে এই আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। বিশ্ব সম্প্রদায়ের পক্ষে কূটনৈতিক কোরের ডিন ও বাংলাদেশে ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত আর্চ বিশপ জর্জ কোচেরি ওই আশ্বাস দিয়েছেন। রাষ্ট্রদূত নিজেই পরে বিষয়টি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিদেশি কূটনীতিকদের জন্য এটিই ছিল সরকারের প্রথম ব্রিফিং। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার ও কনসাল জেনারেল, ঢাকায় সব কূটনৈতিক মিশন ও জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরাসহ মোট ৫৫ জন দূত ব্রিফিং অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহিরয়ার আলম, পররাষ্ট্রসচিব মো. শহীদুল হকসহ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর ব্রিফিংয়ে সরকারের বিভিন্ন অর্জন তুলে ধরে সফল অর্থনৈতিক কূটনীতির মাধ্যমে রূপকল্প-২০২১, এজেন্ডা-২০৩০ ও রূপকল্প-২০৪১-এ বর্ণিত উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো বাস্তবায়নে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার কথা জানান। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গড়তে সবার সমর্থন, সহযোগিতা, সম্পৃক্ততা ও অংশীদারত্ব প্রত্যাশা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুর্নীতি দূরীকরণ ও সুশাসন নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা কূটনৈতিক কোরের সদস্যদের জানান। বাংলাদেশ বৈশ্বিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার ওপর গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সহযোগিতার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ জানান এবং মিয়ানমারে তাদের নিরাপদ, টেকসই  ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে গঠনমূলক ভূমিকা অব্যাহত থাকবে বলে প্রত্যাশা করেন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আশা করেন, আগামী দিনগুলোতে বিদেশি বন্ধুদের সহযোগিতা অব্যাহতথাকবে এবং অংশীদারি আরো শক্তিশালী, জোরালো ও বিস্তৃত হবে।

কূটনৈতিক কোরের ডিন সবার পক্ষ থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। বাংলাদেশে শান্তি, উন্নয়ন ও অগ্রগতির লক্ষ্য বাস্তবায়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার ব্যাপারেও তিনি বিশ্ব সম্প্রদায়ের পক্ষে আশ্বাস দেন। ব্রিফিংয়ের পর ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের বলেন, পরস্পরকে জানার জন্য ব্রিফিংয়ে বন্ধুত্বপূর্ণ কথাবার্তা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গা ও অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপর জোর দিয়েছেন। ব্রিফিংয়ে কোনো প্রশ্নোত্তর পর্ব ছিল না।

সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে—ইইউ : বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধিদলের প্রধান ও রাষ্ট্রদূত রেঞ্চা তিয়েরিংক নতুন সরকারের সঙ্গে গঠনমূলকভাবে কাজ করা ও সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি গতকাল ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে পৃথকভাবে সাক্ষাৎ করে ওই আশ্বাস দেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ইইউ রাষ্ট্রদূত সুশাসন, অর্থনৈতিক অংশীদারি, রোহিঙ্গা সংকট, অভিবাসন, জলবায়ু পরিবর্তন, উন্নয়ন সহযোগিতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন। স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে বাংলাদেশের উত্তরণের পটভূমিতে ইইউর সঙ্গে বিদ্যমান সম্পৃক্ততা হালনাগাদকরণ ও আরো রাজনৈতিক সম্পর্ক গড়ার বিষয়েও তাঁরা আলোচনা করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকটকে ‘মানবিক বিপর্যয়’ হিসেবে অভিহিত করে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও সম্মানের সঙ্গে তাদের মাতৃভূমিতে ফেরত পাঠাতে ইইউর আরো ভূমিকা প্রত্যাশা করে।

ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ফোন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনকে বুধবার ফোন করে অভিনন্দন জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি। সে সময় তিনি আশা করেন, আগামী বছরগুলোতে বাংলাদেশ-ইন্দোনেশিয়া সম্পর্ক আরো জোরালো হবে।

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে দ্রুত এফটিএ প্রত্যাশা : ড. মোমেন শ্রীলঙ্কার সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (ফ্রি ট্রেড অ্যাগ্রিমেন্ট-এফটিএ), উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তি, বিনিয়োগ সুরক্ষা চুক্তিসহ প্রস্তাবিত অন্যান্য দ্বিপক্ষীয় চুক্তি দ্রুত সই করার ওপর জোর দিয়েছেন। ঢাকায় শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার জেনারেল এ ডা ব্লিউ জে সি ডি সিলভা গতকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি ওই চুক্তিগুলোর প্রসঙ্গ তুলে ধরেন।

স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নের প্রশংসা নেপালের : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১০ বছরে বাংলাদেশে উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার প্রশংসা করেছেন ঢাকায় নেপালের বিদায়ি রাষ্ট্রদূত ড. চোপ লাল ভুষাল। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের সঙ্গে গতকাল সাক্ষাতে তিনি ওই প্রশংসা করেন। মন্ত্রী নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আমদানি, দুই দেশের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন এবং অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ানোর ওপর জোর দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা